এমসি কলেজে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, আদালতের চার্জশিট গ্রহণ

প্রকাশিত: ২:৫৫ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ১২, ২০২১

সিলেট এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে দলবেঁধে গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনার মামলায় চার্জশিট গ্রহণ করেছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মোহিতুল হক এই চার্জশিট গ্রহণ করেন।

তবে এখনও বিচারিক কার্যক্রমের দিন নির্ধারিত করেননি আদালত। এই মামলায় গেলো ৩ ডিসেম্বর প্রধান অভিযুক্ত সাইফুরসহ আটজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট জমা দিয়েছিল পুলিশ। অভিযুক্ত আটজনের মধ্যে ছয়জন ধর্ষণে সরাসরি জড়িত ছিলেন। আর দু’জনকে তাদের সহযোগী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

সরাসরি জড়িত অভিযুক্তরা হলেন, প্রধান আসামি ছাত্রলীগকর্মী সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেকুল ইসলাম তারেক, অর্জুন লস্কর, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল ও মিসবাউল ইসলাম রাজন মিয়া। আর সহযোগী হিসেবে অভিযুক্ত করা হয়েছে রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমান মাসুমকে।

এর আগে ডিএনএ টেস্টেও গ্রেপ্তার আসামিদের ডিএনএ নমুনার সঙ্গে ঘটনাস্থলের ডিএনএ নমুনার মিল পাওয়া যায়।
গেলো বছরের ২৫ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯টার দিকে টিলাগড় এলাকার এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে আসা ওই গৃহবধূকে ক্যাম্পাস থেকে তুলে ছাত্রাবাসে নিয়ে ধর্ষণ করেন কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী।

এ ঘটনায় পরদিন সকালে নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমানকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ২-৩ জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলায় গ্রেপ্তার আট আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন।