সোমবার থেকে টিকা প্রদান শুরু করবে আমেরিকা

প্রকাশিত: ১০:১৭ পূর্বাহ্ণ , ডিসেম্বর ১৩, ২০২০

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিধ্বস্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এমতাবস্থায় দেশটি জরুরিভিত্তিতে ফাইজার-বায়োএনটেকের তৈরি করোনা টিকা ছাড়পত্র দিয়েছে। যা আগামী সোমবার থেকে প্রয়োগ শুরু হবে। 

আজ রোববার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে টিকাগুলোর পৌঁছানোর কাজ সম্পন্ন হতে পারে। ট্রাম্প প্রশাসন পরিচালিত ওয়ার্প অপেরেশেনের প্রধান কর্মকর্তা জেনারেল ওস্তাভ পারনা সংবাদ সম্মেলনের জানান, ‘সোমবার নাগাদ আমেরিকার ৬৩৬ স্থানের ১৪৫টিতে টিকা সরবরাহের কাজ সম্পন্ন হবে। বাকি স্থানগুলোতে মঙ্গলবার ও বুধবার নাগাদ টিকা পৌঁছে যাবে বলে আশা করছি।’

প্রথমে স্বাস্থ্যকর্মী ও নার্সিং হোমের লোকজন এই ভ্যাকসিন পাবেন। যদিও পরে জানানো হয়, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এর আগে টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, ‘আগামী ২৪ ঘণ্টারও কম সময়ের মধ্যে প্রথম টিকা দেয়া হতে পারে।  জরুরি ভিত্তিতে ওই টিকা ব্যবহারের ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।’

স্থানীয় সময় শুক্রবার (১১ ডিসেম্বর) রাতে পোস্ট করা ওই  ভিডিওতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘ফেডেক্স এবং ইউপিএস-এর সঙ্গে আমাদের সুসম্পর্ক থাকায় ফাইজারের টিকা দ্রুত দেশে আনাতে চলেছি। প্রতিটি প্রদেশে ওই টিকা শিগগিরই পৌঁছে যাবে।’

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র অনুমোদন দেয়ার মধ্যদিয়ে বিশ্বের ছয়টি দেশে ফাইজার তাদের প্রয়োগ শুরু করল।  প্রথম দেশ হিসেবে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা প্রয়োগ করেছে ব্রিটেন। টিকাকরণের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে সেখানে। এরপরই বাহারাইন, কানাডা, সৌদি আরব এবং মেক্সিকো ওই টিকা ব্যবহারের অনুমতি দেয়।

সম্প্রতি, আমেরিকার বিশেষজ্ঞ কমিটির ১৭ সদস্য ফাইজারের টিকা জরুরি ব্যবহারের পক্ষে রায় দেয়। যেখানে চার জন প্রয়োগের বিপক্ষে ও একজন অনুপস্থিত ছিলেন।

বিষেশজ্ঞ কমিটির কাছে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল, ‘টিকার বৈজ্ঞানিক ফল মাথায় রেখে ১৬ ঊর্ধ্ব নাগরিকদের জন্য কি এই টিকা ব্যবহার করা যায়?’ সেখানে টিকা পরবর্তী সময়ের ঝুঁকির কথাও মাথায় রাখতে বলা হয়েছিল। তার উত্তরেই বিশেষজ্ঞ কমিটি ছাড়পত্র দিয়েছে।

ঘটনাচক্রে গত বৃহস্পতিবারই প্রায় ৪৪ হাজার মানুষের উপর টিকা প্রয়োগ করে তার ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নালে প্রকাশ করেছে সংস্থা। তারপরেই আমেরিকায় এসেছে ছাড়পত্র দেয়ার দাবি।

ফলাফলে দাবি করা হয়েছে, এই করোনা টিকা গড়ে ৯৫ শতাংশ কার্যকর। তেমন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও এই টিকার ফলে দেখা যায়নি। আরএনএ প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই টিকা তৈরি করার ফলেই এই সাফল্য বলে জানিয়েছেন ফাইজারের বিজ্ঞানীরা।
তবে খারাপ খবর এসেছে ব্রিটেন থেকে। সেখানে জরুরি ভিত্তিতে টিকা নেয়ার পর দুই স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে অ্যালার্জি দেখা দিয়েছে। সেই কারণে ছাড়পত্র পেলেও এই টিকার গায়ে একটি লেবেল সাঁটা থাকবে, যেখানে সতর্ক করা থাকবে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার বিষয়ে।