মানবতার বিরল দৃষ্টান্ত দেখালেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা

প্রকাশিত: ২:০৪ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ১২, ২০২০

শরীয়তপুর মুমূর্ষু এক বৃদ্ধকে রাস্তা থেকে তুলে চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়েছেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মনোদীপ ঘরাই।বিষয়টি রাস্তার অনেক পথচারীদের দৃষ্টিতে এলেও মুমূর্ষু এই বৃদ্ধার সহয়তায় এগিয়ে আসেননি কেউ। করোনা মহামারিতে নিজের সুরক্ষা নিয়েই ব্যস্ত সবাই। এর মধ্যেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানবতার বিরল দৃষ্টান্ত দেখালেন শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা।

১০ ডিসেম্বার বৃহস্পতিবার গভির রাতে শহরের আটং এলাকায় রাস্তার পাশে বস্তার ভেতরে থাকা একবৃদ্ধার আর্তনাদ শুনে এগিয়ে যান এক মটর সাইকেল আরোহী। তিনি বিষয়টি জানানোর পর ঘটনাস্থলে আসেন ইউএনও মনোদীপ ঘরাই। তাকে উদ্ধারের জন্য আশে পাশের মানুষের সহয়তা চান কিন্তু শরীরে পঁচন দুর্গন্ধ আর করোনা সংক্রমণের ভয়ে এগিয়ে আসেননি কেউ। পরে ইউএনও নিজেই মুমূর্ষু বৃদ্ধাকে এম্বুল্যান্সে তুলে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করান। তার চিকিৎসার সব ব্যবস্থাও করেছেন তিনি। রোগী আশংকা মুক্ত নন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

মোটরসাইকেল আরোহী বলেন, আমি রাস্তার উপর বস্তার ভেতর পড়ে থাকা বৃদ্ধাকে দেখে প্রথমে ডিসি মহোদয়কে ফোন দেই। ডিসি স্যার আমাকে সদর ইউএনও’র নাম্বার দেন এবং তার সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। আমি ইউএনও কে ফোন দিয়ে বললে। তিনি বলেন, আপনি ঐখানেই দাড়ান আমি এক্ষুনি আসছি।

এবিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মনোদীপ ঘরাই বলেন,আমি ৩দিন হলো শরীয়তপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে আছি। আমি ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে সবার সহযোগিতা চাচ্ছিলাম। সেই জায়গায় প্রায় ৫০ জন মানুষ ছিলো, তারা সবাই সড়ে গেছে। কেউ ধরতে পারেননি বা ধরার মতো তাদের রুচি হয়নি। আমি এই টুকু বলবো যে, যত দিন শরীয়তপুরে কাজ করি,সার্ভিসে আছি বা না আছি। মানুষ হিসাবে যতটুকু দায়িত্ব তত টুকু পালন করব। রোগীটিকে চিকিৎসা দিয়ে রবি/সোমবারের দিকে ফরিদপুর পূর্নবাসন কেন্দ্রে পাঠানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।