আশুলিয়ার গৌরীপুরে মোবাইলের জন্য এক তরুণকে হত্যা, আটক এক 

প্রকাশিত: ৮:৪১ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ২২, ২০২০

আশুলিয়ায় মোবাইলের জন্য সজীব হোসেন নামে এক তরুণকে হত্যা করলো অপর দুই বন্ধু। হত্যার ১২ দিন পর জঙ্গল থেকে অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় সজীব আহমেদ নামে এক বন্ধু গ্রেফতার হলেও অপর হত্যাকারী বন্ধু পলাতক রয়েছে।

রোববার দুপুরে গ্রেফতার সজীব আহমেদকে আদালতে পাঠানো হয়। এরঅগে ভোররাতে আশুলিয়ার টঙ্গাবাড়ি এলাকার জঙ্গল থেকে সজীবের তথ্যমতে সোহেল রানা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এই অভিযানে আশুলিয়া থানার এস আই জসিম ও এস আই আমদাদ ও এস আই সুদীপ্ত অংশ নেন।

হত্যাকারী সজীব আহমেদ পাবনা জেলার শাজাহানপুর থানার শহীদুল ইসলামের ছেলে। নিহত সোহেল রানা আশুলিয়ার একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতো বলে জানা গেছে। গ্রামের বাড়ি পাবনায়। তবে পরিবারসহ আশুলিয়ার গৌরিপুরে বসবাস করতো।

নিহতের বাবা শুফিকুল ইসলাম জানান, ‘‌‌আমার ছেলের মোবাইলের জন্য তার দুই বন্ধু তাকে নির্মভাবে গলায় বেল্ট পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। আমি এই হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার এস আই জসিম উদ্দিন জানান, গত ১০ নভেম্বর সোহেল রানা নিখোঁজের থানায় সাধারন ডায়েরি করেন তার পরিবার। পরে তদন্তে নামে আশুলিয়া থানা পুলিশ। তদন্তের এক পর্যায়ে সোহেলের বন্ধু সজীবকে আটক করা হলে জিজ্ঞাসাবাদে সে সোহেল রানাকে ডেকে নিয়ে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করে। পরে টঙ্গাবাড়ির একটি জঙ্গল থেকে তার অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে জানা যায়, তারা তিনজন ঘনিষ্ট বন্ধু। পূর্বের মনোমালিন্য ও মোবাইল হাতিয়ে নেয়ার জন্য সোহেল রানাকে ১০ নভেম্বর রাতেই শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ জঙ্গলে ফেলে দেয়।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।