চট্টগ্রামে পুলিশের বদলি আতঙ্কে কাজে স্থবিরতা

প্রকাশিত: ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ , অক্টোবর ১৯, ২০২০

বৃহত্তর চট্টগ্রামে মাঠপর্যায়ের পুলিশ সদস্যদের মধ্যে বদলি আতঙ্কে স্বাভাবিক কাজে চরম স্থবিরতা নেমে আসছে। বিশেষ করে কক্সবাজার জেলায় গণবদলির পর অন্যান্য ইউনিটগুলোতেও এমনটা বিরাজ করছে। যে কারণে এখানকার পুলিশ সদস্যরা রুটিন ওয়ার্ক ছাড়া বাড়তি কোনো কাজই করছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। বন্ধ রয়েছে মাদক কিংবা অস্ত্র উদ্ধারে বড় কোনো অভিযান।

গত কয়েক দিন ধরে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে দেয়া হচ্ছে বদলির আদেশ। প্রথম পর্যায়ে সহকারী উপপরিদর্শক এবং উপপরিদর্শক পদগুলোতে বদলি করা হচ্ছে। পরবর্তীতে মাঠপর্যায়ের অন্যান্য পদগুলোতেও বদলির আদেশ আসতে পারে বলে ধারণা শীর্ষ কর্মকর্তাদের।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর বলেন, দীর্ঘদিন একই জায়গা কাজ করলে আমরা তাদের অন্যত্র বদলি করে দেই। এ ছাড়াও অন্য কোনও কারণ নেই।

গত এক মাস আগেই বদলে দেয়া হয় চট্টগ্রাম রেঞ্জের অধীন কক্সবাজার জেলার পুরো পুলিশ প্রশাসন। বদলির পর এখনো কক্সবাজারের পরিস্থিতি অনুকূলে আনা যায়নি। এর মাঝে অন্যান্য জেলাগুলোতেও দেখা দিয়েছে বদলি আতংক। তবে কর্মকর্তারা এসব বদলিকে রুটিন ওয়ার্ক হিসেবেই দেখছেন।

চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন বলেন, পেশাদার ব্যক্তির কাজ হচ্ছে তার পেশাগত কাজ করা। তার বদলি যেখানে হোক; সেখানে গিয়ে তাকে কাজ করতে হবে। এখানে আতঙ্কের কিছুই নেই, ভয়েরও কিছুই নেই।

আগে বদলির পর নতুন কর্মস্থলে যোগ দিতে কমপক্ষে সাত দিন সময় দেয়া হলেও এখন তা মাত্র একদিনে নেমে এসেছে।

এনিয়ে যেমন পুলিশ সদস্যদের মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে। তেমনি বদলির ক্ষেত্রে নানা ধরনের দোষারোপের বিষয় তুলে ধরায় অস্বস্তি রয়েছে।

সিএমপি উপকমিশনার এস এম মেহেদী হাসান বলেন, যেসব পুলিশ সদস্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত; তাদের আমরা নিবীড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছি এবং তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীর ব্যবস্থা নেব।

অপরাধ দমনে সব ধরনের বড় অভিযান দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ। পুলিশের মনোবল চাঙা রাখতে গণবদলির বিপক্ষে সরকার নিয়োজিত পিপি।

চট্টগ্রাম মহানগর আদালতের পি পি অ্যাডভোকেট ফখরুদ্দিন আহমেদ বলেন, অপরাধে মামলা ও মোকদ্দমা তারাই দেখভাল করেন; এভাবে গণবদলি হলে সবকিছু থমকে যাবে।

করোনাকালীন সময়ে মানবিক পুলিশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করা পুলিশ প্রশাসন এক প্রদীপকাণ্ডের পর চরম ইমেজ সংকটে পড়ে। সেই ইমেজ ফিরিয়ে আনতেই চলছে বদলিসহ নানা কার্যক্রম। ## সময় টিভি