হেরে গেলেন আ.লীগের প্রভাবশালী যেসব নেতা

প্রকাশিত: ৬:৫৭ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ৮, ২০২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জয়জয়কার। মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্যসহ ক্ষমতাসীন দলের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে ধরাশায়ী হয়েছেন।

রোববার (৭ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত দেশের ২৯৯টি সংসদীয় আসনের মধ্যে ২৯৮টি আসনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ ২২৩টি আসনে জয়লাভ করে একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন ৬১টি আসনে। এছাড়া জাতীয় পার্টি ১১টি এবং ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ ও কল্যাণ পার্টি একটি করে আসনে জিতেছে।

বর্তমান মন্ত্রিসভার বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলীকে পরাজিত করে চমক দেখিয়েছেন সৈয়দ সায়েদুল হক (ব্যারিস্টার সুমন)। তিনি হবিগঞ্জ-৪ আসনে প্রায় প্রায় ১ লাখ ভোটের ব্যবধানে প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীকে হারিয়েছেন। সৈয়দ সায়েদুল হক পেয়েছেন ১ লাখ ৬৯ হাজার ৯৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মাহবুব আলী পেয়েছেন ৬৯ হাজার ৫৪৩ ভোট।

পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যও স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হেরে গেছেন। যশোর-৫ (মনিরামপুর) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইয়াকুব আলীর ঈগল প্রতীকে পেয়েছেন ৭৭ হাজার ৪৬৮ ভোট। স্বপন ভট্টাচার্য পেয়েছেন ৭২ হাজার ৩৩২ ভোট।

ফরিদপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো–চেয়ারম্যান কাজী জাফর উল্যাহ হেরে গেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মজিবুর রহমানের (নিক্সন চৌধুরী) কাছে। নৌকা প্রতীকে জাফর উল্ল্যাহ পেয়েছেন ১ লাখ ২৪ হাজার ৬৬ ভোট। আর নিক্সন চৌধুরী ঈগল প্রতীকে পেয়েছেন ১ লাখ ৪৮ হাজার ৩৫ ভোট। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো নিক্সনের কাছে হারলেন আওয়ামী লীগের এই নেতা।

মাদারীপুর-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রী বিশেষ সহকারী আবদুস সোবহান মিয়া (গোলাপ) ৬১ হাজার ৯৭১ ভোট পেয়ে হেরে গেছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য মোসা. তাহমিনা বেগম ঈগল প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৯৬ হাজার ৬৩৩ ভোট বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

ঢাকা-১৯ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও সরকারের ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান পরাজিত হয়েছে। তিনি নির্বাচনে তৃতীয় হয়েছেন। এই আসনে বিজয়ী সাইফুল ইসলাম পেয়েছেন ৮৪ হাজার ৪১২ ভোট। তাঁর নিকটতম স্বতন্ত্র তৌহিদ জং মুরাদ পেয়েছেন ৭৬ হাজার ২০২ ভোট।

নেত্রকোনা-৩ আসনে পরাজিত হয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। তিনি নিজ দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য ইফতিকার উদ্দিন তালুকদারের কাছে হেরেছেন। ইফতিকার উদ্দিন পেয়েছেন ৭৬ হাজার ৮০৩ ভোট। অসীম কুমার উকিল পেয়েছেন ৭৪ হাজার ৫৫০ ভোট।

মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও দলের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস হেরেছেন। মৃণাল কান্তি দাশ ভোট পেয়েছেন ৮২ হাজার ৮৩৩টি। তার প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাম্মদ ফয়সাল স্বতন্ত্র হিসেবে কাঁচি প্রতীকে পেয়েছেন ৮৯ হাজার ৭০৫টি। ভোটের ব্যবধান ৬ হাজার ৮৭২ ভোট।

কুষ্টিয়া-২ আসনে ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী কামারুল আরেফিনের কাছে হেরে গেলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি ও নৌকার প্রার্থী হাসানুল হক ইনু। ট্রাক প্রতীক নিয়ে কামারুল আরেফিন পেয়েছেন ৯৮ হাজার ৮৯৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান সংসদ সদস্য ইনু পেয়েছেন ৭৯ হাজার ৭৯ হাজার ৭৩৫ ভোট ।

রাজশাহী-২ আসনে নৌকার বাদশাকে হারিয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুর রহমান। কাঁচি মার্কা নিয়ে তিনি ভোট পেয়েছেন ৫৫ হাজার ১৪১টি। অপরদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা নৌকা মার্কা নিয়ে পেয়েছেন ৩১ হাজার ৪২৩ ভোট।

গাজীপুর-৫ (সদর-কালীগঞ্জ) আসনে প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজকে ভোটে হারিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আখতারুজ্জামান। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন ডাকসুর সাবেক ভিপি আখতারুজ্জামান।

রংপুর-৫ স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকির হোসেন সরকার ট্রাক প্রতীকে পেয়েছেন এক লাখ ৯ হাজার ৭০৯ ভোট। তার নিকটতম আওয়ামী লীগের প্রার্থী আশিকুর রহমান রাশেক নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৭৪ হাজার ৫৯০ ভোট।

নওগাঁ-৪ স্বতন্ত্র প্রার্থী ব্রহানী সুলতান মামুদ গামা ৮৫ হাজার ১৮০ ভোট আর তার নিকটতম নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নহিদ মোর্শেদ পেয়েছেন ৬২ হাজার ১৩২ ভোট।

নওগাঁ-৬ স্বতন্ত্র ওমর ফারুক ৭৬ হাজার ৬৬০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম নৌকার আনোয়ার হোসেন হেলাল পেয়েছেন ৬৯ হাজার ৯৭১ ভোট।

নাটোর-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ পেয়েছেন ৭৭ হাজার ৯৪৩। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের শহিদুল ইসলাম বকুল পেয়েছেন ৭৫ হাজার ৯৪৭।

কুষ্টিয়া-১ রেজাউল হক চৌধুরী (ট্রাক) পেয়েছেন ৮৯ হাজার ২৭৪টি, নাজমুল হুদা পটল বিশ্বাস (ঈগল) পেয়েছেন ৫৩ হাজার ১০৫টি, সরওয়ার জাহান বাদশাহ (নৌকা) পেয়েছেন ৪৮ হাজার ৯৬১টি।

কুষ্টিয়া-৪ স্বতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হারলেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য সেলিম আলতাফ জর্জ। জর্জ নৌকা প্রতীক নিয়ে আসনটিতে পেয়েছেন ৮০ হাজার ১১১ ভোট। ট্রাক প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করে ৯৮ হাজার ৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুর রউফ।

ঝিনাইদহ-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নাসের শাহরিয়ার জাহেদী ১ লাখ ৩৬ হাজার ৭৭৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে তাহজীব আলম সিদ্দিকী পেয়েছেন ১ লাখ ১৬ হাজার ২০৭ ভোট।

যশোর-৫ আসনে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র ঈগল প্রতীকের প্রার্থী ইয়াকুব আলী ৭৭ হাজার ৪৬৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম নৌকার স্বপন ভট্টাচার্য পেয়েছেন ৭২ হাজার ৩৩২ ভোট।

যশোর-৬ স্বতন্ত্র ঈগল প্রতীকের মো. আজিজুল ইসলাম ৪৮ হাজার ৯৪৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শাহীন চাকলাদার পেয়েছেন ৩৯ হাজার ২৬৯ ভোট।

বরগুনা-১ ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম সরোয়ার টুকু ৬১ হাজার ৮৭৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম গোলাম সরোয়ার ফোরকান (স্বতন্ত্র) পেয়েছেন ৫৭ হাজার ৮৭৪ এবং টানা চারবারের সংসদ সদস্য নৌকার ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু পেয়েছেন ৫৪ হাজার ১৬৮ ভোট।

টাঙ্গাইল- ৩ স্বতন্ত্র প্রার্থী আমানুর রহমান খান রানা বিজয়ী হয়েছেন। তার কাছে পরাজিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ডা. কামরুল হাসান রানা। আমানুর ভোট পেয়েছেন ৮২,৭৪৮ আর কামরুল হাসান খান পেয়েছেন ৬৯০৩৫ ভোট।

টাঙ্গাইল-৪ স্বতন্ত্র আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ৭০ হাজার ৯৪০ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন, তার নিকটতম আওয়ামী লীগের মো. মাজহারুল ইসলাম তালুকদার পেয়েছেন ৫৪ হাজার ৭৫ ভোট।

টাঙ্গাইল-৫ স্বতন্ত্র ছানোয়ার হোসেন ৭২ হাজার ২৭৬ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছেন, তার নিকটতম মানুর অর রশিদ নৌকা নিয়ে পেয়েছেন ৬৫ হাজার ৮৬৭ ভোট।

শেরপুর-১ আসনে স্বতন্ত্র মো. ছানুয়ার হোসেন এক লাখ ৩৬ হাজার ৯৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রার্থী আতিউর রহমান আতিক (নৌকা), ৯৩ হাজার ৩৭ ভোট পেয়েছেন।

জামালপুর-৪ স্বতন্ত্র প্রার্থী অধ্যক্ষ আব্দুর রশিদ পেয়েছেন ৫০ হাজার ৬৭৮ ভোট, তার নিকটতম নৌকার প্রার্থী মাহবুবুর রহমান হেলাল পেয়েছেন ৪৭ হাজার ৬৩৮ ভোট।

কিশোরগঞ্জ-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. সোহরাব উদ্দিন ৮৯ হাজার ৫৩৯ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নৌকার প্রার্থী আবদুল কাহার আকন্দ ৬৮ হাজার ৯৩২ ভোট।

ময়মনসিংহ-১ স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহমুদুল হক সায়েম ট্রাক প্রতীকে ৯৩ হাজার ৫৩১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম জুয়েল আরেং নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৭৩ হাজার ৮৯২ ভোট।

ময়মনসিংহ-৫ স্বতন্ত্র নজরুল ইসলাম ট্রাক প্রতীকে ৫২ হাজার ৭৮৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সালাহ উদ্দিন আহমেদ মুক্তি লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ৩৪ হাজার ১৬৮ ভোট।

ময়মনসিংহ-৬ স্বতন্ত্র আবদুল মালেক সরকার ৫২ হাজার ২৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম মোসলেম উদ্দিন নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৪২ হাজার ৫৫৮ ভোট।

ময়মনসিংহ-৭ স্বতন্ত্র এ বি এম আনিসুজ্জামান আনিছ ৭১ হাজার ৭৩৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম হাফেজ রুহুল আমিন মাদানি নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৫০ হাজার ৫৩১ ভোট।

ময়মনসিংহ-১১ স্বতন্ত্র এম এ ওয়াহেদ ট্রাক প্রতীকে ৯৫ হাজার ২৮০ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম কাজিম উদ্দিন আহমেদ ধনু নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৫৬ হাজার ৪২০ ভোট।

মানিকগঞ্জ-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলুর কাছে হেরে গেলেন তিনবারের এমপি কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম। টুলু পেয়েছেন ৮৪ হাজার ৫২৫ ভোট। নৌকা প্রতীকে মমতাজ বেগম পেয়েছেন ৭৮ হাজার ২৬৯ ভোট।

ফরিদপুর-৩ নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শামীম হক ৭৫ হাজার ৮৯ ভোট পেয়ে হেরে যান। এখানে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এ কে আজাদ। তিনি ঈগল প্রতীকে পেয়েছেন এক লাখ ৩৪ হাজার ৯৮ ভোট।

নরসিংদী-৩ প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম মোল্লা নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফজলে রাব্বি খান। সুনামগঞ্জ-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়া সেন গুপ্তা ৬৭ হাজার ৭৭৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মাহমুদ পেয়েছেন ৫৮হাজার ৬৭২ ভোট।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্রপ্রার্থী সৈয়দ এ কে একরামুজ্জামান ৮৯ হাজার ৭৫৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী জি এম ফরহাদ হোসেন ৪৬ হাজার ৬৩৩ ভোট পেয়েছেন।

কুমিল্লা-২ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল মজিদ ৪৪ হাজার ৪১৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন তার নিকটতম নৌকা প্রতীকের সেলিমা আহমাদ পান ৪২ হাজার ৪৫৩ ভোট।

কুমিল্লা-৩ স্বতন্ত্র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম সরকার ৮৩ হাজার ৯৮১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন নৌকা প্রতীক নিয়ে ৭২ হাজার ১৪ ভোট পান।

কুমিল্লা-৪ স্বতন্ত্র আবুল কালাম আজাদ ৯৬ হাজার ৮০৭ ভোট পেয়ে জিতেছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের রাজী মোহাম্মদ ফখরুল পান ৮১ হাজার ২৫০ ভোট।

কুমিল্লা-৫ স্বতন্ত্র আবু জাহের ৬৫ হাজার ৮১০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী সাজ্জাদ হোসেন স্বপন ৬১ হাজার ৫২২ ভোট পান। নৌকা প্রতীকের আবুল হাসেম খান তৃতীয় হয়েছেন।

Loading