‘গায়ের রং কালো বলে সতীর্থরা এক টেবিলে খেত না’

প্রকাশিত: ৫:১০ অপরাহ্ণ , জুলাই ১৮, ২০২০

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে টেস্টে ৩৯০, ওয়ানডেতে ২৬৬ ও টি-টোয়েন্টিতে ৬টি উইকেট শিকার করেছেন তিনি। ১৯৯৮ থেকে ২০১১ পর্যন্ত খেলেছেন ১০১টি টেস্ট, ১৭৩টি ওয়ানডে এবং ১০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটে সর্বকালের অন্যতম সেরা পেসার হয়েও মাখায়া এনটিনি রেহাই পাননি বর্ণবাদের ছোবল থেকে। প্রতিভার মাপকাঠিতে তার বিচার হয়নি। শুধু গায়ের রং কালো বলে তাঁকে দূরে সরিয়ে রেখেছিলেন সতীর্থরা। দল হারলেও তাঁকে দোষ দেওয়া হতো।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর পর অনেকেই বর্ণবাদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। আমেরিকার প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। খেলার জগতেও সেই প্রতিবাদের ঢেউ এসে পড়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ড্যারেন সামি থেকে শুরু করে দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার লুঙ্গি এনগিডি-অনেকেই জানিয়েছেন খেলার মাঠে ও বাইরে তাঁদের কীভাবে বর্ণবিদ্বেষের শিকার হতে হয়েছে! অনেক সময় সতীর্থদের অবহেলা ও বিরূপ আচরণ সহ্য করতে হয়েছে তাঁদের। এবার মুখ খুললেন মাখায়া এনটিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যতম সেরা পেসার হওয়া সত্ত্বেও তাঁকে অপমান সহ্য করতে হয়েছে।

দক্ষিণ আফ্রিকান ব্রডকাস্টিং করপোরেশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এনটিনি বলেছেন, ‘ক্রিকেটজীবনে একাকিত্ব ছিল আমার সব সময়ের সঙ্গী। আমাকে দলের কেউ ডিনারের জন্য ডাকত না। এমনকি সকালে ব্রেকফাস্ট টেবিলে গেলেও সতীর্থরা আমার পাশে বসত না। সতীর্থরা আমার সামনেই অনেক পরিকল্পনা করত। কিন্তু তাতে আমাকে রাখত না। আমরা একই জার্সি পরতাম। একই জাতীয় সংগীত গাইতাম। তবু আমাকে এসব সহ্য করতে হয়েছে। আমি টিম বাসের ড্রাইভারের কাছে নিজের ব্যাগ দিয়ে দিতাম। তারপর দৌড়ে মাঠে যেতাম। মাঠ থেকে ফেরার সময়ও একই কাজ করতাম। কেউ জানত না আমি এমনটা কেন করতাম! কাউকে কখনো বুঝতে দিইনি। এ নিয়ে কাউকে কিছু বলিনি।’