শালিখার ইউএনও মোঃ তানভীর রহমানের বিরুদ্ধে অনিয়ম- দূর্নীতির অভিযোগ

প্রকাশিত: ১২:১৮ অপরাহ্ণ , জুলাই ৮, ২০২০

মাহামুদুন নবী :—
মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মোঃ তানভীর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে।
জানা যায়, সম্প্রতি গত ২৪ শে জুন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিরা জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।
অভিযোগ পত্রে উল্লেখ রয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত জন প্রতিনিধিদের না জানিয়ে গ্রাম পুলিশ/চৌকিদারদের দিয়ে বয়স্ক ভাতা, জমি আছে ঘর নাই প্রকল্প সহ বিভিন্ন প্রকল্পের উপকার ভুগির তালিকা তৈরি করেছেন, চেয়ারম্যান মেম্বরদের সাথে খারাপ আচারন ও মান হানিকর মন্তব্য করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তানভীর রহমান। কোভিড-১৯ ভাইরাস সংক্রমনের শুরুতে জনপ্রতিনিধিদের সাথে কোন পরামর্শ ছাড়াই সেচ্ছাসেবক গঠনের নামে বিএনপি/জামাত-শিবীরদের দিয়ে সেচ্ছাসেবক দল গঠন করেন তিনি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সিএ মোঃ জহির রায়হান একই উপজেলার কাতলী গ্রামের বাসিন্দা এবং ঘৃন্য রাজাকারের সন্তান বলে জানা যায়। তাকে দিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের ভয় ভীতি দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয় বলে অভিযোগে জানা যায়। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে অসহায় ও কর্মহীন মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার নামে বিভিন্ন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা চাঁদা বাজি করেন বলে অভিযোগে উল্লেখ রয়েছে। শালিখা বাসীকে তৃতীয় শ্রেণির নাগরিক বলে মন্তব্য করেন নির্বাহী কর্মকর্তা। এছাড়াও ভুয়া বিলভাউচারের মাধ্যমে বিল উত্তোলন, ওভারল্যাপিং এর মাধ্যমে পরিষদের বিভিন্ন প্রকল্পের বিল উত্তোলন এবং নির্বাহী কর্মকর্তার সেচ্ছাচারি সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করলেই তিনি নানা উপায়ে হয়রানী,হুমকী ও ভয় ভীতি প্রদর্শন করেন বলে অভিযোগকারী চেয়ারম্যানগন তাদের লিখিত বক্তব্যে জানান।
ইউপি চেয়ারম্যান শ্রী-বিমলেন্দু শিকদার, মোঃ আরজ আলী বিশ্বাস,মোঃ বক্তিয়ার উদ্দিন লস্কর, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল ইসলাম, মহিলা ভাইস্ চেয়ারম্যান জেসমিন আক্তার শাবানাসহ অভিযোগকারী চেয়ারম্যানগন বলেন আমাদের একটাই দাবি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আইনগত শাস্তি ও বদলীর দাবি জানাই। অন্যথায় গণ আন্দোলন শুরু করবেন বলে জানানা তারা।

অভিযোগর বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তানভীর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আমার কর্মকান্ড কারো ভাল না লাগলে যে কেহ আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে পারেন। অভিযোগ দিয়েছে যদি অভিযোগ সত্য প্রমানিত হয় তাহলে আমার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবে এ বিষয়ে আমার কোন দ্বিমত নেই। তবে আমার বিরুদ্ধে যে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে সেটি একেবারেই ষড়যন্ত্রমুলক এবং ভিক্তিহীন।

খুলনা বিভাগীয় অতিরিক্ত কমিশনারের সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান অভিযোগের বিষয়ে তিনি কোন তদন্তে শালিখায় সন মন্ত্রনালয়ের ব্যাপার।আর স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে তার মতবিনিময় হয়েছে মাত্র।