বিশ্বজুড়ে মন্দার ঝুঁকি বাড়ছে

প্রকাশিত: ১১:২০ পূর্বাহ্ণ , অক্টোবর ১২, ২০২২

আইএমএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, বিশ্বজুড়ে ‘মন্দার ঝুঁকি বাড়ছে’ এবং বিশ্ব অর্থনীতি একটি ‘ঐতিহাসিক ভঙ্গুরতার সময়কাল’ এর মুখোমুখি হচ্ছে। 

মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে আইএমএফ এবং বিশ্বব্যাংকের বৈঠকের সময় তিনি এই সর্তক বার্তা দেন।

এদিকে ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপের সদর দপ্তরে “ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক আউটলুক” প্রকাশ করা হয়। রিপোর্টটির সারমর্ম তুলে ধরে আইএমএফ এর প্রধান অর্থনীতিবিদ বলেন, “এবছর বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৩.২%,। আর পরের বছর ২০২৩ সালে এটা কমে দাড়াবে ২.৭ শতাংশে।”

মার্কিন প্রবৃদ্ধি নিয়ে আইএমএফ এ সভায় উল্লেখ করে যে, আইএমএফ মার্কিন অর্থনীতির জন্য তার পূর্বাভাসে প্রবৃদ্ধি এই বছর ১.৬ শতাংশ কমিয়েছে, যা জুলাইয়ের ২.৩ শতাংশ থেকে কম হয়েছে। আইএমএফ বলেছে যে তারা আগামী বছর শুধুমাত্র ১% মার্কিন প্রবৃদ্ধি আশা করছে।

আইএমএফ আশা করছে যে বিশ্বজুড়ে ভোক্তাদের দাম এই বছর ৮.৮% বৃদ্ধি পাবে, যা ২০২১ সালের ৪.৭% থেকে বেড়েছে। 

আইএমএফ এ বছর চীনের জন্য ৩.২% প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে, যা গত বছরের ৮.১℅ থেকে কমেছে।

করোনভাইরাস নিয়ন্ত্রণ এবং অত্যধিক রিয়েল এস্টেট ঋণের উপর ক্র্যাকডাউনের কারণে চীনের ব্যবসায়িক বৃদ্ধি ব‍্যাপকভাবে ব্যাহত হয়েছে। চীনের অর্থনীতি আগামী বছর ৪.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে, যা সাম্প্রতিক চীনা অগ্রগতির তুলনায় এখনও সামঞ্জস্যশীল। 

আইএমএফ এর মতে ইউরো মুদ্রা ব্যবহার করে ১৯-জাতির ইউরোপীয় ব্লকে মাত্র অর্ধ শতাংশ পয়েন্টের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি করেছে। 

আইএমএফ প্রধান তথ‍্য তুলে ধরে বলেন, “আগামী বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার ২.৭% আশা করছে, যা জুলাই মাসের ২.৯% থেকে কম।”

ঋণদানকারী সংস্থাটি বলেছে যে তারা আগামী বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার ২.৭% আশা করছে, যা জুলাই মাসে অনুমান করা হয়েছিল ২.৯℅ থেকে কম। 

আইএমএফ তার ২০২২ সালের ভবিষ্যদ্বাণী অপরিবর্তিত রেখেছে, একটি ৩.২℅ পরিসংখ্যান যা গত বছরের ৬℅ বৃদ্ধির অর্ধেকের সামান্য বেশি হবে। 

আইএমএফ পূর্ভাবাস দিয়েছে যে, বিশ্ব অর্থনীতির এক তৃতীয়াংশেরও বেশি আগামী বছরে পরপর দুই চতুর্থাংশ নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখতে পাবে।

আইএমএফের পূর্বাভাসে বিশ্বমন্দা নিয়ে অবাক হওয়ার কিছু ছিল না। বিশ্বের দুটি বৃহত্তম অর্থনীতি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনে প্রবৃদ্ধি মন্থর হচ্ছে, যখন ইউরোপের প্রধান অর্থনীতিগুলিও অর্থনৈতিক হেডওয়াইন্ডের মুখোমুখি হচ্ছে। রাশিয়া ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তার পশ্চিমা মিত্রদের দ্বারা আরোপিত নিষেধাজ্ঞা মোকাবেলা করছে।

Loading