অনৈতিক কার্যকলাপ ॥ হাইকমিশনের প্রথম সচিব ঢাকায় ফেরত

প্রকাশিত: ২:৩২ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ২৭, ২০২২

কলকাতার বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) মুহম্মদ সানিউল কাদেরকে নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগে ঢাকায় ফেরত আনা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আসা অভিযোগের তদন্ত করবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, সানিউল কাদেরের সঙ্গে কলকাতার আলিশা মাহমুদ নামে এক নারীর ভিডিও চ্যাট ও হোয়াটসঅ্যাপের আলাপ ফাঁস হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার এক আদেশে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে ঢাকায় ফিরে আসতে বলা হয়। আদেশ অনুযায়ী তিনি বুধবার বেনাপোল বন্দর হয়ে ঢাকায় ফিরেছেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘সানিউল কাদেরের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তা তদন্ত করা হবে। উনি অপরাধ করে থাকলে তার শাস্তি হবে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।’

মিশনে কর্মরত প্রথম সচিব মুহম্মদ সানিউল কাদের এর কার্যকলাপ সম্পর্কিত দু’টি অনৈতিক কাজের দুটি ভিডিও সামনে এসেছে। ভিডিও দুটিতে দেখা যাচ্ছে সানিউল এবং ওই নারী নগ্ন অবস্থায় উদ্যম নৃত্য ও অনৈতিক কার্যকলাপে লিপ্ত। মূলত হোয়াটসঅ্যাপে উত্তেজনামূলক চ্যাটিং এবং তাদের ভিডিও রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলে আসে। তাতে বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের কর্মকর্তারা যথেষ্ট ক্ষুণ্ন হয়েছেন।

এ বিষয়ে ডেপুটি হাইকমিশন প্রধান (এইচওসি) শামীমা ইয়াসমিন বলেন, বিষয়টি স্পর্শকাতর, এখনই এই নিয়ে মন্তব্য করা যাবে না, তবে যদি এমন ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে আমরা সরকারিভাবে ব্যবস্থা নেব।

এর আগেও ৯০ দশকে কলকাতার হোটেলে এক যৌন কেলেঙ্কারিতে নাম জড়ান কলকাতাস্থ বাংলাদেশ উপদূতাবাসের দুই উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। সেই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তৎকালীন বাংলাদেশ সরকার তাদের দেশে ফিরিয়ে নেয় বলে জানা যায়।

উপদুতাবাস সূত্রে বলা হচ্ছে, গোটা বিশ্বে গোপন তথ্য পাচারের এখন ‘হানিট্রাপ’ প্রতিটা দেশের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সানিউল তার স্বীকার করে কিনা তাই এখন খতিয়ে দেখা হবে।