যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা পরিবর্তনে প্রচেষ্টা চালাব

প্রকাশিত: ৫:১১ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ১৪, ২০২১

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং সংস্থার সাতজন সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, তা পরিবর্তনের জন্য প্রচেষ্টা চালানো হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন।

মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সফর উপলক্ষ্যে এই ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে পররাষ্ট্র মন্ত্র্রণালয়।

আবদুল মোমেন বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেটি দুঃখজনক। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইনমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আমাকে আলোচনা করে একটি করে উত্তর দেওয়ার জন্য দায়িত্ব দিয়েছেন। একা হুট করে উত্তর দেওয়া ঠিক হবে না।

যুক্তরাষ্ট্রে বিচারবহির্ভূত হত্যা ও গুমের প্রসঙ্গ টেনে মার্কিন পদক্ষেপের সমালোচনা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যারা এসব করছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তি নেওয়ার কথা আমি কোনো দিন শুনিনি। কিন্তু বাংলাদেশে হঠাৎ কোনো কোনো লোকের প্ররোচনায়, কোনো কোনো সংস্থা বিশেষ করে, মানবাধিকার ও বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) কারণে এমন বড় একটি সিদ্ধান্ত আলোচনা না করে চাপিয়ে দেওয়া হলো।

আবদুল মোমেন বলেন, আমাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর। প্রতিনিয়ত তাদের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা করছি। হঠাৎ না জানিয়ে কেন এটা করা হলো আমরা এটি ওদের সঙ্গে আলোচনা করব। ওদের সব সিদ্ধান্ত সঠিক এমন নয়, এর ভূরি ভূরি নজির আছে। তাদের মধ্যে পরিপক্ব ও জ্ঞানী লোক আছে। তারা যাতে তাদের অবস্থার পরিবর্তন করে সেই প্রচেষ্টাই চালাব।

প্রসঙ্গত র‌্যাবের ‘গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের’ ঘটনায় এ বাহিনী, এর সাবেক প্রধান, বর্তমান পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদসহ সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র সরকার।

গত শুক্রবার আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে পৃথকভাবে এ নিষেধাজ্ঞা দেয় যুক্তরাষ্ট্রের ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট (রাজস্ব বিভাগ) ও পররাষ্ট্র দপ্তর।

Loading