নিউইয়র্কে জরুরি অবস্থা জারি

প্রকাশিত: ২:১৩ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ২৮, ২০২১

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ঠেকাতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে নিউইয়র্কে। রাজ্যটির গভর্নর ক্যাথি হোচৌল স্থানীয় সময় শুক্রবার জরুরি অবস্থা জারি করেন। খবর ব্লুমবার্গের।

নিউইয়র্কের গভর্নর বলেন, রাজ্যে ওমিক্রণের সংক্রমণ এখনও শনাক্ত হয়নি। তবুও সর্তকতা হিসেবে হাসপাতালগুলোতে অপ্রয়োজনীয় এবং কম গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো সীমিত করতে এবং জরুরি চিকিৎসার সরঞ্জামাদি দ্রুত সরবরাহ করতে আদেশ দিচ্ছি। ৩ ডিসেম্বর থেকে এ আদেশ কার্যকর হবে। ১৫ জানুয়ারি পরিস্থিতি বুঝে বিষয়টি পর্যালোচনা করা হবে।

কোভিডের চতুর্থ ঢেউয়ে নিউইয়র্কের হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীর ভিড় বাড়ছে। বিভিন্ন দেশে মহামারির নতুন ধরন ওমিক্রনের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ার খবর আসছে। পরিপ্রেক্ষিতে জরুরি অবস্থা জারি করল নিউইয়র্ক।

নিউইয়র্ক গভর্নরের জরুরি অবস্থা জারির ঘোষণায় বলা হয়েছে, ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে সংক্রমণের হার কম ছিল। কিন্তু বর্তমানে করোনা রোগী বাড়ছে। রোজ তিন শতাধিক রোগী আক্রান্ত হচ্ছে। এ কারনে রাজ্যজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হচ্ছে। যেটি ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

প্রসঙ্গত করোনার ধরনগুলোর মধ্যে ওমিক্রনকে সবচেয়ে মারাত্মক বলছেন বিজ্ঞানীরা।

মূলত দক্ষিণ আফ্রিকার এক প্রদেশে এ ধরনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এর কয়েক দিনের মধ্যেই আফ্রিকার অন্যান্য দেশ এবং ইউরোপ ও এশিয়ায় এ ধরন শনাক্ত হয়েছে। আগামী দিনগুলোয় বিশ্বের অন্যান্য স্থানেও এ ধরন ছড়িয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওমিক্রনকে করোনাভাইরাসের ‘উদ্বেগজনক ধরন’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। ওমিক্রন বহুবার ‘অস্বাভাবিকভাবে রূপ বদল’ করেছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

দক্ষিণ আফ্রিকার কোয়াজুলু-নাটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রিচার্ড লেসেলস এ বিষয়ে বলছেন, ‘এ ভাইরাসের সংক্রমণের ক্ষমতা এবং এক মানুষ থেকে অন্য মানুষে ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা আরও বেশি। এসব আমাদের শঙ্কার মধ্যে ফেলেছে। আমাদের রোগ প্রতিরোধক্ষমতাকে ভেদ করার কিছু ক্ষমতাও সম্ভবত এর রয়েছে।