কৃষি জমি ইজারা দিতে চায় আফ্রিকার কয়েকটি দেশ

প্রকাশিত: ১:৫৭ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২১, ২০২১

বাংলাদেশেকে কৃষি জমি ইজারা দিতে আগ্রহী আফ্রিকার কয়েকটি দেশ। বিষয়টি নিয়ে ওই অঞ্চলের দেশগুলোর সাথে আলোচনা চলছে। তবে দক্ষিণ সুদানের সাথে আলোচনা এগিয়েছে অনেক দূর। দু’দেশের মধ্যে এ সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে শিগগিরই। 

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ সশস্র বাহিনীর অংশগ্রহণ ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা বিশ্বস্বীকৃত। গৃহযুদ্ধে বিপর্যস্ত অনেক দেশে শান্তি ফিরিয়ে এনেছে বাংলাদেশ সশস্র বাহিনী। কাজ করছে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশগুলোর পুনর্গঠনেও।

এমন বাস্তবতায় কম্বোডিয়া, রুয়ান্ডা, হাইতি, লাইবেরিয়া, উগান্ডা, মোজাম্বিকসহ দক্ষিণ সুদানের মতো দেশগুলো তাদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডেও বাংলাদেশকে অংশীদার করতে চায়। ইজারা দিতে আগ্রহী কৃষি জমি।

সেখানে কাজ করে আসে সাবেক সেনা কর্মকর্তারা বলছেন, দেশগুলোতে অনাবাদি পড়ে আছে লাখ লাখ একর জমি। এসব জমি খুবই উর্বর। দক্ষিণ সুদান-সহ আফ্রিকার দেশগুলোতে মাটি তুলা, কফি, কমলা, আপেল, রামবুটান-সহ বিভিন্ন ধরনের ফল ও সবজি চাষের উপযোগী।

জাতিসংঘ মিশনের সাবেক কমান্ডার (দক্ষিণ সুদান) মেজর জেনারেল (অব.) সালাউদ্দিন মিয়াজী বলেন, “আমাদের কৃষকরা অত্যন্ত পরিশ্রমী। আমরা আফ্রিকার মাটিতে গিয়েছে, সেখানকার জনগণ কৃষিকাজ তেমনভাবে জানে না। ওদের অনেক কৃষি জমি পড়ে আছে। ওদের দেশে যেয়ে ওদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আমরা কৃষি বিপ্লব ঘটাবো। ওখানে নতুন একটা বাংলাদেশ তৈরি করে ফেলবো।”

জমি ইজারা বিষয়ে দক্ষিণ সুদানের সাথে আলোচনা ইতিমধ্যেই অনেকদূর এগিয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেন, “সৌদি আরবে কিংবা মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে আমাদের কৃষকরা মরুভূমির মধ্যে কৃষি ফলায়। ওখানে গেলোও তারা ভালো কাজ করতে পারবে। আশা করি, খুব শীঘ্রই একটা সমঝোতা স্মারক হবে। আমরা নতুন নতুন অ্যাভিন ইয়ুজ করতেছি, যার লক্ষ্য আমরা ২০৪১ সালে একটা উন্নত দেশ হবো।”

পশ্চিম আফ্রিকার এসব বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশে ৪০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হতে পারে জানান তিনি।

ড. একে আব্দুল মোমেন আরও বলেন, “আমরা যদি ঠিকমতো চলতে পারি তাহলে সেখানে প্রায় ৪০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে। সুতরাং বিরাট একটা সম্ভাবনা।”

গত মাসে জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশন চলাকালীন সাইডলাইন বৈঠকে জমির ইজারা দেয়ার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আগ্রহের কথা জানান দক্ষিণ সুদান সরকারের প্রতিনিধিরা।-ETV