নির্বাচনে যাওয়ার বিষয় পরিষ্কার করলেন ফখরুল

প্রকাশিত: ৪:১৮ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ১৪, ২০২১

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের এখনো প্রায় দেড় বছর বাকি। ২০২৩ সালের শেষ থেকে ২০২৪ সালের জানুয়ারির মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে এই নির্বাচন। তবে এরই মধ্যে দেশের রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনের হিসাব-নিকাশ করতে শুরু করেছে। বিশেষ করে বিএনপির নেতারা নির্বাচন নিয়ে ঘুরেফিরে অতীতের কথাগুলোই বলছেন। কিন্তু দ্বাদশ নির্বাচনে যাওয়ার বেশ কিছু বিষয় পরিষ্কার করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক আলোচনাসভায় সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘পরিষ্কার করে বলছি, আগে পদত্যাগ করুন, একটা নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা দিন। তারা ইসি নিয়োগ দেবে, নির্বাচন কীভাবে হবে সেটা ঠিক করবে এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।’

ফখরুল বলেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া কোনোভাবেই নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দ্বারা সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষতো নির্বাচন ভুলেই গেছে। সেই ২০০১ সালে নির্বাচন হয়েছে। তারপরে কী আর নির্বাচন হয়েছে? ২০০৮ সালে অবৈধ ফখরুদ্দিন-মইনউদ্দিনের অধীনে যে নির্বাচন হয়েছে সেটা আমরা সম্পূর্ণভাবে কখনও মেনে নিতে পারিনি। এরপর ২০১৪ সালে ১৫৪ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৮-তে পুলিশ-বিজিবি-র‌্যাব এমনকি আর্মি দিয়ে আগের রাতেই ভোট কেটে নিয়ে গেছে। সেবার ছাত্রলীগের গুন্ডাদের আনসারের পোশাক পরিয়ে প্রত্যেকটা ভোটকেন্দ্রে পাহারা দেওয়া হয়েছিল।

তিনি আরও বলেন, আজ সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হাফিজ উদ্দিন সাহেব বলেছেন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নিরপেক্ষ সরকার ছাড়া কোনোভাবেই ইসির দ্বারা সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব হবে না। সে কারণে পরিষ্কার করে বলছি, আগে পদত্যাগ করুন, একটা নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা দিন, তারা নির্বাচন কমিশন নিয়োগ দেবে, নির্বাচন কীভাবে হবে সেটা ঠিক করবে। সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।