(পূর্ব প্রকাশের পর) হাওর এলাকার মানুষজনের স্বাস্হ্যগত অবস্হা-

প্রকাশিত: ৫:১৯ পূর্বাহ্ণ , আগস্ট ৩, ২০২১

সামাজিক উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ চলক হলো স্যানিটেশন।প্রকৃতপক্ষে স্যানিটেশন এর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সমাজের মর্যাদা ও অবস্হান প্রকাশ পেয়ে থাকে ;কিন্তু হাওর পাড়ের মানুষের স্যানিটেশনের ব্যাপারে তাদের সচেতনতা ও জ্ঞানের যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে।এক জরিপে দেখা যায়,৭৫.৫২ শতাংশ পরিবারের নিজস্ব শৌচাগার রয়েছে এবং ১৭.৩৯শতাংশ পরিবার প্রতিবেশীর শৌচাগারে বা অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে শৌচাগার ব্যবহার করে থাকে।আর বাকী পরিবারের শৌচাগার নেই।

শৌচাগারের ধরন ও প্রকৃতির ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, ১.৭৪ শতাংশের পাকা শৌচাগার রয়েছে যা কাঙ্ক্ষিত মান নির্দেশক নয়।তবে আশার কথা হচ্ছে যে,৫০.৪৩ শতাংশ পরিবার রিং স্লাব শৌচাগার ব্যবহার করছে, পক্ষান্তরে বাংলাদেশে জাতীয় ভাবে এখনও ৩৫.০৬ শতাংশ পরিবার কঁাচা শৌচাগার ব্যবহার করে থাকেএবং বাকী পরিবারের শৌচাগার নেই। (BBS,2017)

সত্যি কথা বলতে কি—শৌচাগারের অবস্হান পর্যালোচনা করলে হাওর পাড়ের মানুষজনের স্বাস্হ্য ও স্যানিটেশনের ব্যাপারে ধারণা পাওয়া যায়। মূলতঃহাওর পাড়ের অধিবাসীদের ৫৭.৩৯ শতাংশের শৌচাগারের অবস্হান হচ্ছে বাড়ির বাইরে কিন্ত খুব বেশী দূরে নয় অর্থাৎ ২০০ মিটারের ভিতরে এবং ১৬.৫২ শতাংশের শৌচাগার বাড়ির সাথে লাগোয়া। তাই বলা যায়, ‘হাওরের স্যানিটেশন সুবিধাদি কাঙ্ক্ষিত মানের নয়।’সুতরাং বলা যায়, হাওরাঞ্চলের মানুষজন এখনও নানাবিধ কারণে আধুনিক স্যানিটেশন সেবার আওতার বাইরে রয়ে গেছে।(চলবে)
তথ্যসূত্রঃMaster plan,2021
বাংলাদেশ উন্নয়ন সমীক্ষা খন্ড ৩৬

Loading