চাঁপাইনবাবগঞ্জে আষাঢ়ের বৃষ্টিতে কৃষকের মুখে হাসি

প্রকাশিত: ২:১০ অপরাহ্ণ , জুলাই ১৬, ২০২১

সংবাদদাতা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চলতি বছরে কৃষকেরা একদিকে ধানের নায্যমূল্য প্রাপ্তি, অন্যদিকে আষাঢ়জুড়ে অতিরিক্ত বৃষ্টিতে খুশি দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কৃষকরা। অন্যান্য বছরের তুলনায় চলতি বছরে অধিক পরিমানে বর্ষার অফুরন্ত পানিতে কৃষক ধান বুনতে বুনতে দেখছেন নতুন দিনের স্বপ্ন। বর্ষার পানির জন্য এবছর শিবগঞ্জের কৃষকের সেচের খরচ বাঁচিয়ে দেবে বলে জানান কৃষকরা। অন্যদিকে, গতবছরের তুলনায় শ্রমিকদের মজুরি বেড়েছে ৩০-৬০ টাকা।

জেলার ধানচাষী ও ধান রোপন করা শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার আষাঢ়ের বৃষ্টি একটু আগেই শুরু হয়েছে। জ্যৈষ্ঠ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে পুরোদমে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। আষাঢ় মাসের ৩১তম ও শেষ দিন বৃহস্পতিবার। পুরো আষাঢ় মাসজুড়ে হাতেগোনা কয়েকটা দিন পাওয়া যাবে, যেসব দিনে বৃষ্টি হয়নি। তাই অগ্রিম বৃষ্টি পেয়ে আমন চাষে মাঠে মেনে পড়েছে কৃষকেরা। উপজেলায় এখন আমন চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকেরা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, চলতি মৌসুমে আমন চাষাবাদ করার জন্য জ্যৈষ্ট মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে বীজতলার কাজ শুরু করেছেন জেলার কৃষকেরা। আষাঢ়ের শুরুতেই পুরোদমে বৃষ্টিতে আমন রোপন শুরু করেছেন তারা। আষাঢ়ের অতিরিক্ত বৃষ্টিতে কৃষকদের খরচ অনেক কমে যাবে বলেও জানান তিনি।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরে চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৫৩ হাজার ২০৫ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা গতবছর চাষাবাদ হয়েছিল ৫৩ হাজার ২২০ হেক্টর জমি।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) পর্যন্ত জেলায় প্রায় ২০ হাজার ৪১০ হেক্টর জমিতে ধান রোপন সম্পন্ন হয়েছে। এবছর আমন মৌসুমে ২ লাখ ১১ হাজার ৮৬৬ মেট্রিক টন ধান ও ১ লাখ ৪১ হাজার ২৪৪ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি বিভাগ।