ক্যাপিটল হিলে হামলাকারীর পরিচয় মিলেছে

প্রকাশিত: ৩:২৩ অপরাহ্ণ , এপ্রিল ৩, ২০২১

যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলে হামলাকারীর নাম–পরিচয় জানা গেছে। তার নাম নোয়া গ্রিন (২৫)। তিনি ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা। ক্ষোভ থেকেই ওই ব্যক্তি ক্যাপিটল ভবনে হামলার চেষ্টা করেন বলে জানা যাচ্ছে। খবর মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, শুক্রবার হামলার আগে তিনি চাকরি হারানো, চিকিৎসা করাতে না পারার মতো ঘটনা উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একাধিক পোস্ট করেছিলেন।

গত ৬ জানুয়ারির পর শুক্রবার (২ এপ্রিল) দুপুর ১টার দিকে কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত এবং আরেকজন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় হামলাকারী পুলিশের গুলিতে নিহত হন নোয়া গ্রিন।

২৫ বছর বয়সী নোয়া গ্রিন ২০১৯ সালে ভার্জিনিয়ার ক্রিস্টোফার নিউপোর্ট ইউনিভার্সিটি থেকে গ্রাজুয়েশন করেছেন। তিনি পশ্চিম ভার্জিনিয়ার ফেয়ারলিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ভার্জিনিয়ার ড্রাইভিং লাইসেন্সও ছিল তার।

কিছুদিন আগে আরেক পোস্টে গ্রিন লিখেছিলেন, ‘মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ এবং এফবিআইয়ের মাধ্যমে ভয়ংকর দুর্ভোগের পরে ফারাখান তাকে রক্ষা করেছেন। ওই পোস্টের এক কমেন্টে গ্রিন জানান, বাড়িতে একাধিকবার অনুপ্রবেশ, খাবারে বিষক্রিয়া, হামলা, হাসপাতালে অননুমোদিত অস্ত্রোপচার এবং চিন্তাশক্তি প্রভাবিত (মাইন্ড কন্ট্রোল) করার শিকার হয়েছেন তিনি।’

ইনস্টাগ্রামে নোহা গ্রিন যুক্তরাষ্ট্রের সরকারকে কৃষ্ণাঙ্গদের এক নম্বর শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করে মন্তব্য করেছেন। এছাড়াও নিজেকে লুইস ফারাখানের অনুসারী হিসেবে উল্লেখ করেছেন তিনি।

ওয়াশিংটন ডিসির মেট্রোপলিটন পুলিশ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত প্রধান রবার্ট কনটে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, এখন পর্যন্ত এই হামলাকে সন্ত্রাসবাদের ঘটনা বলে মনে হচ্ছে না।

এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, নিহত পুলিশ কর্মকর্তা উইলিয়াম বিলি ইভান্স ১৮ বছর ধরে ক্যাপিটল পুলিশে কাজ করছিলেন।

তিনি জানান, ওই সময় সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তি একটি নীল রঙের সেডান গাড়ি নিয়ে ক্যাপিটল হিলের উত্তর দিকের বেরিকেডের ওপর আছড়ে পড়েন। তারপর চালক গাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে ছুরি নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় পুলিশের একজন সদস্য তাকে গুলি করে। তবে হামলাকারী নিহত হওয়ার আগেই তার ছুরিকাঘাতে দুজন পুলিশ কর্মকর্তা আহত হন, যাদের একজন পরে মারা যান।