টাঙ্গাইলে বেতন ও পেনশনের দাবিতে গ্রামীন ব্যাংক অবসরপ্রাপ্তদের অবস্থান কর্মসূচি

প্রকাশিত: ২:৪৫ অপরাহ্ণ , মার্চ ২৪, ২০২১

টাঙ্গাইলে গ্রামীণ ব্যাংক অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্মচারীরা ভাতা ও পেনশনের দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে। বুধবার (২৪ মার্চ) সকালে টাঙ্গাইল গ্রামীণ ব্যাংকের জোনাল অফিসের কার্যালয়ের সামনে তারা অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেন। অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন গ্রামীণ ব্যাংক অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারী কল্যাণ সমিতির সদস্যরা। অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন,গ্রামীণ ব্যংকের অবসর প্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্মচারী কল্যাণ সমিতির টাঙ্গাইল জেলা সমিতির উপদেষ্ঠা তোফাজ্জল হোসেন, ঢাকা বিভাগীয় গ্রামীণ ব্যংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্মচারী কল্যাণ সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি জুলহাস উদ্দিন,ও টাঙ্গাইল জেলা গ্রামীণ ব্যংকের অবসর প্রাপ্ত কর্মকর্তা কর্মচারী কল্যাণ সমিতির সভাপতি মুহাম্মদ আব্দুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম, কেস্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ইদ্দ্রিছ আলী, টাঙ্গাইল জেলা কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন ভুইয়া প্রমুখ। অবস্থান কর্মসুচিতে বক্তারা বলেন, অবসরপ্রাপ্তদের সরকার ঘোষিত আর্থিক সুবিধা না দিয়ে সময়ক্ষেপণ করছে। গ্রামীণ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অবসরপ্রাপ্তদের রাস্তায় নামিয়ে প্রতিষ্ঠানের দুর্নাম ছড়াচ্ছে। আমাদের চিকিৎসা ভাতা, ২টি ঈদ উৎসব বোনাস, বৈশাখী ভাতা দিতে হবে। আর যাদের অবসরকালীন ১৫ বছর শেষ হয়েছে, তাদের আবার পুনরায় পেনশন দিতে হবে। সরকারি প্রতিষ্ঠানে পেনশন সুবিধা কার্যকর হয়েছে, কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংকে এসব ভাতা পরিশোধ না করায় অবসর নেওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অথচ, অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বকেয়া পাওনা দিতে অর্থ মন্ত্রণালয় ও সহকারী দপ্তরের নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু গ্রামীণ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে নীরব রয়েছে। তারা আরো বলেন, ‘আমাদের ভাতা ও সুবিধার জন্য গ্রামীণ ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে গেলে তারা বিগত ৪ বছর ধরে ঘুরাচ্ছে। টাকার অভাবে অনেক অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা রিকশা, ভ্যান চালান, এটা গ্রামীণ ব্যাংকের জন্য লজ্জা হওয়ার কথা। অবিলম্বে সরকারি নির্দেশনা গ্রামীণ ব্যাংক না মানলে আরও কঠিন কর্মসূচি দেওয়া হবে। এতে কোনো অপ্রীতিকর অবস্থা সৃষ্টি হলে এর দায় গ্রামীণ ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে|