নারায়ণগঞ্জে পিকে হালদারের গোপন গুদাম, শতাধিক দলিল উদ্ধার

প্রকাশিত: ২:০৮ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে আলোচিত পিকে হালদারের গোপন একটি গুদামে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। এ সময় ওই গুদাম থেকে জমি-প্লট-ফ্ল্যাট-ভবন কেনার শত শত দলিল উদ্ধার করা হয়।

জানা গেছে, দুদকের উপ-পরিচালক সালাউদ্দিনের নেতৃত্বে একটি টিম জানতে পারে, নারায়ণগঞ্জের ভুলতায় পিকে হালদারের জায়গা জমি কেনার গোপন একটি গুদাম রয়েছে। সম্প্রতি সেখানে গোপনে অভিযান চালিয়ে শত শত জায়গা-জমি-ফ্ল্যাট কেনার দলিল পায় দুদক।

এসব দলিল পর্যালোচনা করে তদন্ত টিম যেসব জায়গা চিহ্নিত করতে পেরেছে তার একটি তালিকা করা হয়েছে। প্রথমধাপে রাজধানীর উত্তরায় দশ তলা ভবন, ধানমন্ডিতে দুটি ফ্ল্যাট, এছাড়া নারায়ণগঞ্জ, ময়মনসিংহ ও নরসিংদী শহরে ৭ হাজার ৮০ শতাংশ জমি শনাক্ত করা গেছে।

যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় এক হাজার কোটি টাকা। এসব সম্পদ জব্দের নির্দেশনা চেয়ে বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আদালতে আবেদন করে দুদক। বিকেলেই আদালত থেকে এসব সম্পদ জব্দের নির্দেশনা আসে।

বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে দশ হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে পিকে হালদারের বিরুদ্ধে দুদকের অনুসন্ধান চলছে। এসব দলিল থেকে দেখা যায়, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় জমি কিনেছেন আর্থিক কেলেঙ্কারির এই হোতা। প্রাথমিকভাবে ৭ হাজার ৮০ শতাংশ জমি জব্দ করা হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় এক হাজার কোটি টাকা।

রাজধানীর উত্তরায় দশ তলা অভিজাত ভবনটি উইন্টেল ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি প্রতিষ্ঠানের নামে কেনা। উইন্টেল একটি কাগুজে প্রতিষ্ঠান। যার আসল মালিক প্রশান্ত কুমার হালদার। জমিসহ এ জায়গার মূল্য এখন প্রায় শত কোটি টাকা। অবন্তিকা এবং অনিন্দিতা নামে পিকে হালদারের দুজন নারী সহযোগীকে গ্রেফতারের পরই বেরিয়ে আসে তার বিভিন্ন সম্পদের তথ্য।

দুদক কমিশনার ডক্টর মোজাম্মেল হক খান জানান, ‘প্রতিনিয়তই তদন্তে নতুন মোড় নিচ্ছে। দুদক মনে করছে, দেশের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে পিকে হালদার এবং তার সহযোগীদের বিপুল পরিমাণ সম্পদ, যা তদন্তে বেরিয়ে আসবে।’