বিদেশে রপ্তানি হচ্ছে মেহেরপুরের বাঁধাকপি

প্রকাশিত: ৬:০৬ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১

মেহেরপুরের গাংনীতে উৎপাদিত কীটনাশক মুক্ত বাঁধাকপি এখন রপ্তানি হচ্ছে সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও তাইওয়ানে। রপ্তানি পণ্যের তালিকায় এ সবজি যুক্ত হওয়ায় বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের নতুন সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। অল্প খরচে অধিক লাভ হওয়ায় রপ্তানিযোগ্য বাঁধাকপি চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের। 

চাষীরা জানান, রপ্তানিযোগ্য বাঁধাকপি চাষে প্রতি বিঘায় খরচ হয়েছে ২০ থেকে ২২ হাজার টাকা। আর তা বিক্রি করে হাতে আসছে ৫০ থেকে ৫৫ হাজার টাকা। কম খরচে অধিক লাভবান হওয়ায় দিনে দিনে উপজেলায় বাড়ছে রপ্তানিযোগ্য বাঁধাকপির চাষ।

কৃষকরা জানান, ‘অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার কপির ফলন অনেক ভাল হয়েছে। দামও ভাল হওয়ায় আগেরবারের চেয়ে তিনগুণ বেশি লাভ হয়েছে। ফলে আগামীতেও আমরা এই কপি চাষ করতে আগ্রহী হবো। আমাদের কপি যদি রপ্তানি হয়, তাহলে আমরা আরও লাভবান হবো।’

নিরাপদ সবজি উৎপাদনে কৃষকদের প্রশিক্ষণসহ সব ধরনের পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। জানতে চাইলে গাংনী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কে এম সাহাবুদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘প্রশিক্ষণ দেয়া, মাঠ দিবস করা এবং মাঠে তদারকি বাড়িয়ে তাদেরকে আমরা দক্ষ করে তুলেছি।’

রপ্তানিকারকরা জানান, গত বছর ৪শ’ মেট্রিক টন বাঁধাকপি মালয়েশিয়া ও সিঙ্গাপুরে রপ্তানি করা হয়। চলতি মৌসুমে এই পরিমাণ দ্বিগুণেরও বেশি হবে।

এগ্রো ফ্রেশ কোম্পানির ফিল্ড অফিসার রুবেল আহাম্মেদ বলেন, ‘চলতি বছর ইতিমধ্যে ৫শ’ টন বাঁধাকপি রপ্তানি করা হয়েছে। এখনো ৬শ’ টনের অর্ডার আছে।’ বিদেশে সবজির বাজার সম্প্রসারণের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।