কুপিয়ে চোখ উপড়ে জিহ্বা কেটে নিল প্রতিপক্ষরা

প্রকাশিত: ৬:০১ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে পূর্ব বিরোধের জেরে মাহফিল থেকে ফেরার পথে মিলন সরদার (৮০) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। এই ঘটনায় আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। সোমবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের গৌরনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহত মিলন সরদার উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের কান্দাপাড়া এলাকার মৃত তালেব আলীর ছেলে। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন- সরকার গোষ্ঠীর কালু মিয়ার ছেলে মোঃ মাহমুদুল হাসান (৫০), মোঃ তবদল হোসেন মিয়ার ছেলে সিরাজুল ইসলাম (৫৫), মোঃ আব্দুল হকের স্ত্রী নয়তারা বেগম (৫০), ছেলে মোঃ সজিব মিয়া (২০) ও মোঃ সোহাগ মিয়া (২৫), শিফা আলী মিয়ার ছেলে মোঃ সোহেল মিয়া (৪৫)।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গৌরনগর গ্রামে আজইরা গোষ্ঠী ও সরকার গোষ্ঠীর মধ্যে নানান বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিল। তাদের বিরোধের জেরে দুই গোষ্ঠীর একাধিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার রাতে গ্রামে একটি মাহফিল চলছিল। সেই মাহফিল থেকে ফিরছিলেন সরকার গোষ্ঠীর মিলন সরদারসহ আরও কয়েকজন। পথিমধ্যে আজইরা গোষ্ঠীর লোকজন হঠাৎ হামলা করে মিলন সরদারসহ কয়েকজনকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। এসময় মিলন সরদারকে হত্যার পর তার চোখ উপড়ে নিয়ে যায় এবং জিহ্বা কেটে নিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই মারা যান মিলন সরদার। আহতদের উদ্ধার করে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়।

নবীনগর থানার ভারপ্রার্প্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, পূর্ব বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় মিলন সরদার নিহত হয়েছেন। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।