আমেরিকার গণতন্ত্রের ওপর নজিরবিহীন হামলা

প্রকাশিত: ১১:০৫ পূর্বাহ্ণ , জানুয়ারি ৭, ২০২১
TOPSHOT – Democratic Presidential candidate Joe Biden speaks at the Chase Center in Wilmington, Delaware, on November 4, 2020. – President Donald Trump and Democratic challenger Joe Biden are squaring off for what could be a legal battle for the White House, running neck-and-neck in the electoral vote count, and several battleground states still in play on November 4. (Photo by JIM WATSON / AFP)

মার্কিন পার্লামেন্ট ভবন ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের তাণ্ডবের ঘটনায় নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ‘বিক্ষোভকারীদের কর্মকাণ্ড রাষ্ট্রদ্রোহের কাছাকাছি। এটা আমেরিকার গণতন্ত্রের ওপর ‘নজিরবিহীন হামলা’।’

ডেলাওয়ারের উইলমিংটন থেকে দেয়া এক ভাষণে বাইডেন বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে অনুরোধ করছি যে তিনি এখন জাতীয় টেলিভিশনে হাজির হয়ে তার শপথ পূর্ণ করুন এবং সংবিধান রক্ষা করুন এবং এই অবরোধের অবসান ঘটান।’

এসময় বাইডেন এই ঘটনাকে বিক্ষোভ নয়, বরং সন্ত্রাসী কার্যক্রম হিসেবেও অভিহিত করেছেন।

উল্লেখ্য, বুধবার বাইডেনের নির্বাচনী জয়কে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিতে কংগ্রেসে যৌথ অধিবেশন চলাকালে ক্যাপিটল হিলে ঢুকে যায় ট্রাম্প সমর্থকরা। এসময় তারা ব্যাপক তাণ্ডব চালায়। পরে একজন নারীর গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

ওই হামলার পর পার্লামেন্টের অধিবেশন কয়েক ঘণ্টার জন্য স্থগিত করা হয়। এমনকি ওয়াশিংটনে ১২ ঘণ্টার কারফিউও জারি করা হয়। তাণ্ডবের পর অধিবেশন শুরু হলে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেছেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটলের ইতিহাসে একটি কালোদিন এটি।’

এদিকে ক্যাপিটল হিলে তাণ্ডব শুরু হলে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘এগিয়ে আসতে’ এবং এই সহিংসতার নিন্দা জানাতে আহ্বান জানায় ডেমোক্রেটরা। তবে অন্তত দুই ঘণ্টা তাণ্ডব চলার পর সমর্থকদের ‘ঘরে ফিরে যেতে’ আহ্বান জানান ট্রাম্প।

এর আগে বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে ক্যাপিটল হিলে ঢুকে যায়। এসময় তারা ট্রাম্প ও যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা নাড়াতে এবং চিৎকার করতে থাকে। তারা চিৎকার করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল বাতিলের দাবি জানাতে থাকে।