সামাজিক নিরাপত্তা ভাতার টাকা মিলবে মোবাইলে – সমাজকল্যাণ মন্ত্রী 

প্রকাশিত: ৮:৪৪ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ৩১, ২০২০

সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এমপি বলেছেন, সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচীর আওতায় দেশের ৮৮ লক্ষ ৫০ হাজার মানুষকে বিভিন্ন প্রকার ভাতা প্রদান করছে। নতুন বছরে সামাজিক নিরাপত্তার টাকা মোবাইলের মাধ্যমে দেওয়া হবে।

আজ মন্ত্রনালয়ের সভাকক্ষে জিটুপি পদ্ধতিতে সরাসরি সুবিধাভোগীদের কাছে ভাতা পাঠানোর জন্য মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘নগদ’ ও ‘বিকাশ’ এবং সমাজ সেবা অধিদপ্তরের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের সচিব মোঃ জয়নুল বারীর সভাপতিত্বে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক মোঃ রফিকুল ইসলাম মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস (Mobile Financial Service) প্রতিষ্ঠান ‘নগদ’ ও ‘বিকাশ’ এর কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ আরও বলেন, স্বাধীনতার মহান স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি,

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসত্বা বিকাশের প্রধান ব্যক্তিত্ব।বাঙালি জাতিকে যিনি মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করে বাঙালি জাতিসত্বাকে উন্মোচিত করেছেন তারই সুযোগ্য কন্যা মাদার অব হিউম্যানিটিখ্যাত প্রধানমন্ত্রী

শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালে দেশের দায়িত্ব নিয়ে তিনি এদেশের গরীব, দু:খী, অসহায়, মানুষের জন্য বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা প্রবর্তন করেন।তিনিই মানুষের কল্যাণের জন্য এ দেশে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে সফলভাবে বাস্তবায়নের নিমিত্ত নানাবিধ কার্যক্রম সফলভাবে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা অনুযায়ী এবং তার নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা প্রায় ১ কোটি মানুষকে সমাজকল্যাণের মাধ্যমে ভাতা প্রদান করছি।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা পূরনের লক্ষ্যে আজকের এই চুক্তি। প্রধানমন্ত্রী যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে বাংলাদেশকে সারাবিশ্বের দরবারে রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, তার আরেক নতুন ধারার সূচনা হলো আজকে। আমরা যেন সবাই যথাযথভাবে স্ব স্ব দায়িত্ব পালন করে য তার প্রত্যাশা পূরন করতে পারি সেই আশা ব্যক্ত করছি।

উল্লেখ্য, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় চারটি কর্মসূচির আওতায় ৪৯ লাখ মানুষকে বয়স্ক ভাতা, ২০ লাখ ৫০ হাজার মানুষকে বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতাকে ভাতা, ১৮ লাখ প্রতিবন্ধী ভাতা, ১ লাখ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষাবৃত্তির টাকা প্রদান করে। মোট ৮৮ লাখ ৫০ হাজার সুবিধাভোগী রয়েছে, এতে টাকার পরিমাণ ৫ হাজার ৮৮৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এই সুবিধাভোগীদের এ বছর থেকে সরাসরি জিটুপি পদ্ধতিতে সুবিধাভোগীর মোবাইল অ্যাকাউন্টে পাঠানোর মাধ্যমে আমরা প্রদান করা হবে।

সমাজসেবা অধিদপ্তর এবং মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘নগদ’ ও ‘বিকাশ’ এর মধ্যে আজ চুক্তি স্বাক্ষরিত হচ্ছে। এটি প্রধানমন্ত্রী গত সপ্তাহে অনুমোদন করেছেন। আজকের চুক্তি স্বাক্ষরের পর কার্যক্রম শুরু হবে। এবং প্রধানমন্ত্রী আগামি ১৪ জানুয়ারি এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন।