টিকা দেয়ার দুই সপ্তাহ আগে শুরু হবে নিবন্ধন

প্রকাশিত: ১:১৯ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ২৮, ২০২০

করোনা টিকা দেয়ার তালিকা তৈরিতে অনলাইন নিবন্ধনে ব্যবহার করা হবে বিশেষায়িত ‘মোবাইল অ্যাপস’। এই সেলফ রেজিস্ট্রেশন অ্যাপস বানানোও প্রায় শেষ। ভ্যাকসিন দেয়া শুরুর ঠিক দুই সপ্তাহ আগে, শুরু হবে এই নিবন্ধন। এছাড়াও, অগ্রাধিকার তালিকায় থাকা ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের কাছে থাকা তালিকা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

দুই ইউনিট করে ভ্যাকসিন পাবে ষোল কোটি মানুষ। এ এক বিশাল কমযজ্ঞ। প্রক্রিয়া সু-শৃঙ্খল করতে আগেই তৈরি হবে ডাটা বেজ। নিবন্ধন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে সকলকেই।

নিবন্ধনে লাগবে জাতীয় পরিচয় পত্র। বিশেষভাবে তৈরি মোবাইল অ্যাপস ব্যবহার করে স্মাট ফোনে করা যাবে নিবন্ধন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমআইএস, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এ-টু-আই ও তথ্য প্রযুক্তি বিভাগ এই অ্যাপসটি তৈরির কাজ শেষ করে এনেছে। এখন চলছে, শেষ মুহূর্তের মোডিফিকেশন বা রূপান্তরের কাজ।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমআইএস লাইন ডিরেক্টর ডা. হাবিব রহমান বলেন, সেটা হলো সেলফ রেজিস্ট্রেশন। আমরা অ্যাপসটা দিয়ে দিব সর্বত্র। সবাই জানবে অ্যাপসের ব্যবহার, সবাইকে লিংক দিয়ে দিব। যারা অগ্রগণ্য অর্থাৎ যাদেরকে প্রথম তালিকায় রাখবো তারা নিজেরা নিজেদের রেজিস্ট্রেশন করবেন। অগ্রগণ্য হিসেবে যদি টিকা পেতে চান তাহলে আপনাকে সেলফ রেজিস্ট্রেশনটা করতে হবে।

এছাড়াও, অগ্রাধিকারে থাকা ব্যক্তিদের প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকেও তালিকা সংগ্রহ করা হবে। নিবন্ধনের সময় কিছু তথ্য বাধ্যতামূলকভাবে দিতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, প্রত্যেক মাসে ৫০ লাখ ডোজ আসবে। যেটা আমরা ২৫ লাখ লোককে দিতে পারবো। এভাবে ছয় মাসে তিন কোটি ডোজ দেয়া সম্ভব হবে। সেটার একটা তালিকা তৈরি হচ্ছে। এটা ন্যাশনাল ডিসিশন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একার ডিসিশন নয়।

ডা. হাবিব রহমান আরও বলেন, বয়োজেষ্ঠ্য যারা ৬০ বছরের বেশি বা ৬৫ বছরের বেশি তাদেরকে নিয়ে আমরা একটা তালিকা করবো। এভাবে যতগুলো তালিকা সংগ্রহ করা সম্ভব, সেই তালিকাগুলো আমরা সরাসরি সংগ্রহ করে নিবো। সংগ্রহ করে এক্সসেল সিটের মাধ্যমে অ্যাপসে সংযুক্ত করা হবে।

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিতে ইউনিয়ন পরিষদ ও জনপ্রতিনিধিদের করোনা টিকার নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় যুক্ত করার কথা ভাবা হচ্ছে।