আজ থেকে যুক্তরাজ্যে ফাইজার টিকা প্রয়োগ শুরু

প্রকাশিত: ১০:১২ পূর্বাহ্ণ , ডিসেম্বর ৮, ২০২০

যুক্তরাজ্যে আজ মঙ্গলবার থেকে ফাইজার ও বায়োএনটেক উদ্ভাবিত করোনা টিকা প্রয়োগ শুরু হচ্ছে। বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে অনুমোদন পাওয়ার পর সেখানে টিকাটি প্রয়োগ করা হচ্ছে। আর এই কার্যক্রম তদারক করবে ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)। এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য বিভাগ। 

গত ২ ডিসেম্বর ফাইজার-বায়োএনটেকের যৌথ উদ্যোগে তৈরি করোনা ভাইরাসের (কভিড-১৯) টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয় যুক্তরাজ্য। এরপর দ্বিতীয় দেশ হিসেবে গত শুক্রবার এই টিকা ব্যবহারের অনুমোদন দেয় বাহরাইন। প্রতিবেশী ভারতেও টিকার অনুমোদন চেয়েছে ফাইজার। এই টিকার অনুমোদনের জন্য করা আবেদন নিয়ে ১০ ডিসেম্বর পর্যালোচনায় বসবে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে যুক্তরাজ্যে আজ শুরু হতে যাওয়া করোনার টিকা কার্যক্রমকে দেশটির টিকার ইতিহাসে সবচেয়ে বড় পরিসরের কার্যক্রম হিসেবে বলা হচ্ছে। শুরুতে করোনার সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে স্বাস্থ্যকর্মী, ৮০ বছরের বেশি বয়স্ক লোকজন ও কেয়ার হোমের কর্মীরা টিকা পাবেন। ইংল্যান্ডে টিকা দেওয়ার স্থান হিসেবে প্রাথমিকভাবে ৫০টি হাসপাতাল নির্ধারণ করা হয়েছে। স্কটল্যান্ড, ওয়েলস ও নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডেও আজ থেকে টিকা প্রদান শুরু হবে। এসব জায়গায়ও হাসপাতাল থেকে টিকা দেওয়া হবে।

এনএইচএসের ন্যাশনাল মেডিক্যাল ডিরেক্টর অধ্যাপক স্টিফেন পাওস বলেন, ‘অনেক জটিলতা সত্ত্বেও করোনার টিকার প্রথম ব্যাচ সোমবার হাসপাতালগুলোতে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার টিকার প্রয়োগ শুরু হবে।’ তিনি এ-ও বলেছেন, এটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। যাদের এই টিকা প্রয়োজন তাদের সবাইকে টিকা দিতে অনেক মাস সময় লেগে যেতে পারে।

গত বৃহস্পতিবার বেলজিয়াম থেকে যুক্তরাজ্যে এসে পৌঁছে ফাইজারের তৈরি করোনার টিকা। স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, বেলজিয়াম থেকে ইউরো টানেল হয়ে যুক্তরাজ্যে পৌঁছে টিকার এই চালান। কয়েকটি ট্রাকে করে পরিবহনের সময় যানবাহনের গায়ে কিছু লেখা ছিল না। পরে ইংল্যান্ড, ওয়েলস, স্কটল্যান্ড ও নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের কিছু গোপন স্টোরে টিকা পাঠানো হয়। যুক্তরাজ্যের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ (৯৪) কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনার টিকা নেবেন।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক করোনার টিকা প্রয়োগ কার্যক্রমের শুরুকে একটি ‘ঐতিহাসিক মুহূর্ত’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। করোনাভাইরাস রুখতে প্রত্যেককে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে এনএইচএসের টিকা প্রদান কার্যক্রমের সময় সবাইকে স্থানীয় বিধি-নিষেধ অনুসরণ করতেও বলেছেন তিনি।

এম-আরএনএ প্রযুক্তিতে তৈরি এই টিকা নিয়ে শুরুর দিকে তেমন সমর্থন পায়নি ফাইজার। এ সময় তাদের পাশে দাঁড়ায় জার্মান সংস্থা বায়োএনটেক। ফাইজারের তুলনায় যদিও ছোট সংস্থা বায়োএনটেক। কিন্তু যুক্তরাজ্যে তাদের তৈরি টিকা ছাড়পত্র পাওয়ার পরেই রাতারাতি বিশ্বের প্রথম ৫০০ ধনীর তালিকায় উঠে এসেছে বায়োএনটেকের সহপ্রতিষ্ঠাতা উগর সাহিনের নাম। এই সপ্তাহে সংস্থাটির শেয়ারদর বেড়েছে ৮ শতাংশ।