ভারতে মৃত্যু আরও ৪৯০, শনাক্ত ৩৮ হাজার

প্রকাশিত: ৪:২০ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ৩, ২০২০

বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ করোনাক্রান্ত দেশ ভারতে আরও কমেছে সংক্রমণ হার। যা এবার ৩৯ হাজারে নেমেছে। তবে থেমে নেই প্রাণহানি। নতুন করে ৪৯০ জনের মৃত্যু হয়েছে সেখানে। এতে করে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১ লাখ ২৩ হাজার ছাড়িয়েছে। তবে আশা জাগাচ্ছে সুস্থতা। 

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ হাজার ৩১০ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে করে সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে ৮২ লাখ ৬৭ হাজার ৬২৩ জনে দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে, গত একদিনে প্রাণহানি ঘটেছে ৪৯০ জনের। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ২৩ হাজার ৯৭ জনের মৃত্যু হলো করোনায়। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ১১ কোটি ১৭ লাখ ৮৯ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ লাখ ৪৬ হাজারের বেশি।

বিশ্ব তালিকায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরেই বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ করোনাক্রান্ত দেশ হলো ভারত।

এর মধ্যে কেরল, দিল্লি এবং পশ্চিমবঙ্গে দৈনিক সংক্রমণ ৪ হাজারের আশপাশেই। কর্নাটক, তালিনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশে দৈনিক সংক্রমণ গত কয়েকদিনে অনেকটা কমেছে। মহারাষ্ট্রেও তা ৪ হাজারে নেমে এসেছে। মোট আক্রান্তের নিরিখে যদিও শীর্ষে মহারাষ্ট্র।

তারপর কর্নাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, উত্তরপ্রদেশ, কেরল, দিল্লি এবং পশ্চিমবঙ্গ। ওড়িশার মোট আক্রান্ত ৩ লাখের কাছাকাছি। তেলঙ্গানা, বিহার, অসম, রাজস্থানেও মোট আক্রান্ত ২ লাখের বেশি। পশ্চিমবঙ্গের মোট আক্রান্ত বেড়ে এখন ৩ লক্ষ ৮১ হাজার ৬০৮। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯৫৭ জন।

অন্যদিকে প্রায় এক তৃতীয়াংশ মৃত্যুই মহারাষ্ট্রে। দ্বিতীয় ও তৃতীয়তে কর্নাটক এবং তামিলনাড়ু। এরপর ক্রমান্বয়ে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ ও দিল্লি।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘণ্টায়ও ৫৮ হাজার ৩২৩ জন রোগী সুস্থতা লাভ করেছেন। এতে করে বেঁচে ফেরার সংখ্যা বেড়ে ৭৬ লাখ ৩ হাজার ১২১ জনে পৌঁছেছে। দেশটিতে বর্তমানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা কমে ৫ লাখ ৪১ হাজার ৪০৫ জনে দাঁড়িয়েছে।