রায়হান হত্যার ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা হচ্ছে, দাবি মায়ের

প্রকাশিত: ৪:১১ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২৩, ২০২০

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবরের নির্যাতন রায়হান হত্যার মামলা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চলছে। এমন অভিযোগ করেছেন রায়হানের মা সালমা বেগম।

তিনি বলেন, প্রথম দিকে পুলিশ গণপিটুনি বলেছিল। এরপর আন্দোলনের মুখে পড়ে টিটু চন্দ্র দাস নামে এক পুলিশ কনস্টেবলকে গ্রেপ্তার করা হলো। তাকে রিমান্ডেও নিলো।এখন আবার মামলা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে বিভিন্ন ধরনের গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।
তিনি বলেন, আখালিয়া এলাকার কোনো এক জায়গায় নাকি মদের আসর বসতো সেখানে নাকি আকবর আসতো। আমার ছেলে রায়হান নাকি বাধা দিয়েছিল যেন আকবর সেখানে না আসে, সেখান থেকে রায়হানের সাথে আকবরের শত্রুতা-এমন গুজবও ছড়িয়েছে। তিনি দাবি করেন, এসআই আকবরের সাথে তার ছেলের কোনো শত্রুতা ছিল না। পূর্বপরিচয়ও ছিল না।
তিনি বলেন, মিথ্যা বানোয়াট কথা রটানো হচ্ছে। রায়হান হত্যার ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি মহল বিভিন্ন অপপ্রচার চালাচ্ছে। তাদেরকেও আইনের আওতায় নিয়ে আশার দাবি জানান তিনি।
সালমা বেগম বলেন, এলাকার কোনো ছেলের সঙ্গেই আমার শত্রুতা নেই। বিনা অপরাধে আমার ছেলেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে আকবর ও তার সদস্যরা আমি এর সঠিক বিচার চাই।
রায়হানের চাচা হাবিবুল্লাহ জানান, আখালিয়ার কোন এলাকায় মদের আসর বসতো আমাদের তা জানা নেই এ ছাড়া রায়হানের কোন শত্রু এই এলাকায় নেই। তাছাড়া এই এলাকায় বিজিবি ক্যাম্প রয়েছে। সবকথা ভিত্তিহিন। যত দ্রুত সম্ভব আকবরকে গ্রেপ্তার করার দাবি জানান তিনি।
সিসিটিভ ফুটেজ, ময়নাতদন্ত রিপোর্টসহ বিভিন্ন প্রমাণ থাকা সত্তেও আসামি আকবরকে গ্রেপ্তার না করায় শঙ্কিত রায়হানের পরিবার।
এদিকে পিবিআই সিলেট জেলা পুলিশ সুপার খালেদুজ্জামান জানান, আখালিয়া এলাকায় মদের আসর বসতো আকবর সেখানে যেতো এমন অভিযোগ তারাও পেয়েছেন। সবগুলো বিষয় পিবিআই তদন্ত করছে। গুজব যারা ছড়াবে রায়হান হত্যার সঙ্গে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় নিয়ে আশা হবে। মামলার প্রধান আসামি আকবরকে ধরতে সব ধরনের অভিযান অব্যাহত আছে।