মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রণয়ন চ্যালেঞ্জের

প্রকাশিত: ৩:৫২ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২৩, ২০২০

১৯৭১ সাল। বঙ্গবন্ধুর ডাকে দেশের সূর্য সন্তানরা ঝাঁপিয়ে পড়ে মুক্তিযুদ্ধে। ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ আর দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয় স্বাধীনতা। জন্ম নেয় আমাদের প্রিয় মাতৃভুমি বাংলাদেশ।

কিন্তু স্বাধীনতার প্রায় অর্ধ শতাব্দির পরও প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রণয়ন সম্ভব হয়নি।

সরকার বলছে বর্তমানে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের নির্ভুল তালিকা প্রণয়ন চ্যালেঞ্জের। তাই নতুন তালিকা প্রণয়ন প্রক্রিয়ায় থাকছে বাদ পড়া মুক্তিযোদ্ধাদের অন্তর্ভুক্তি, ভুল সংশোধন এবং বিএনপির আমলে যোগ করা প্রায় ৪৪ হাজার মুক্তিযোদ্ধার কর্ম ও পরিচয় যাচাই বাছাই।

এ ব্যাপারে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি শাজাহান খান বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাদের প্রকৃত তালিকা করা আসলেই এখন খুব কঠিন। কারণ ৪৯ বছরে এসে অনেকে জীবিত নেই, অনেকে ভুলে গেছে। আবারও বিভিন্ন সময় অমুক্তিযোদ্ধারাও তালিকাভু্ক্ত হয়েছে। বিশেষ করে বিএনপি সরকারের আমলে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় অনৈতিকভাবে প্রায় ৪৪ হাজার নাম যুক্ত করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে বেশকিছু তালিকা সংশোধন করা হয়েছে। অনৈতিক পন্থায় ও দলীয় দৃষ্টিভাঙ্গি থেকে আগে যেভাবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল, আমরা তার ঊর্ধ্বে উঠে সঠিক তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা করার চেষ্টা করছি।’

২০১৭ সাল থেকে যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।  যাদের এখনও শেষ করতে পারিনি ব্যক্তিগতভাবে তার শুনানি নেয়া হয়েছে বলেও জানান শাজাহান খান।