বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ

প্রকাশিত: ৯:২৩ অপরাহ্ণ , জুলাই ২৭, ২০২০

কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার ছিনাই ইউনিয়নের মহিধর খন্ডক্ষেত্র গ্রামে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেছে দুর্বৃত্তরা। দুর্বৃত্তদের হামলায় ধর্ষিত ছাত্রীর বাবা ও মা গুরুতর আহত হয়েছেন। এ সময় তার বাড়িতে থাকা দুই ভরি স্বর্ণালংকার ও এক লাখ ৬০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় তারা।

পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানান, গতকাল রোববার গভীর রাতে ৪ সদস্যের এক দুর্বৃত্তের দল ওই গ্রামের রেজা শাহ পাহলভি (৪৮) নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে তালা ভেঙে প্রবেশ করে প্রথমে তার মাথায় আঘাত করে। পরে তার স্ত্রী শাহনাজ পারভীনকে (৩৮) বেদম মারপিট করে তার স্বর্ণের চেইন ও গলারহারসহ স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়। এরপর তাদের নবম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়েকে তুলে নিয়ে যায় এবং পার্শ্ববর্তী এলজিইডি খামারের পাশে একটি জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে।

আহত অবস্থায় মেয়েটি পার্শ্ববর্তী একজনের বাড়িতে কোনোমতে দৌড়ে গিয়ে আশ্রয় নেয়। পরে প্রতিবেশীরা তাকেসহ তার বাবা ও মাকে দ্রুত কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।

মেয়েটির বাবা রেজা শাহ জানান, তার ও তার স্ত্রীর মোবাইল ফোনে প্রায়ই মেয়েকে উদ্দেশ্য করে আপত্তিকর মেসেজ প্রদান করা হত। এ নিয়ে প্রতিবাদ করায় দুর্বৃত্তরা এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ধারণা করছেন তিনি। এ ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে।

ঘটনার পর থেকে রাজারহাট থানা পুলিশ তদন্ত শুরু করে। পরে আজ সোমবার দুপুর তিনটার দিকে পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান জানান, এটি একটি অত্যন্ত দস্যুতার ঘটনা এবং ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ঘটনার সঙ্গে জড়িত আসামিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়াও এ ঘটনায় রাজারহাট থানায় একটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান হয়।