ছন্ন ছাড়া জামায়াত

প্রকাশিত: ৯:৫৫ অপরাহ্ণ , জুলাই ২৬, ২০২০

সারোয়ার জাহান আরিফ :

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, এদেশে রাজনীতির সূচনালগ্ন থেকেই লেজুড়বৃত্তিক দল হিসেবে খ্যাত, কখনো আওয়ামীলীগ বা কখনো বিএনপির সাথে জোট করে রাজনীতি করে আসছে। আওয়ামী দরজা থেকে ধাক্কা খেয়ে বিএনপির দরজায় কিংবা বিএনপির দরজা থেকে ধাক্কা খেয়ে আওয়ামী দরজায় পরে থাকা একটি দলের নাম। শেষ রক্ষা পাওয়ার জন্য বিশদলিয় জোটের শরিক হিসেবে ছিলে এযাবতকাল, এদেশের স্বাধীনতা বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় দলটির উপরস্থ কয়েকজন নেতার ফাঁসি ও কারোর যাবৎ জীবন জেলও হয়েছে। এ কর্মের দ্বারা আওয়ামীলীগের সাথে সখ্যতা হারায় দলটি, আশ্রয় নেয় বিএনপির নিকট, বিএনপি এবার সুযোগ বুঝে কোপ মেরেছে! জোট থেকে জামায়াতকে বাদ দেওয়ার খসড়া ঘোষণা দিয়েছে। তাদের দাবী জামায়াতের জন্য তাদের বিভিন্ন সময় নানান প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছে, নানান অপবাদও তাদের ঘাড়ে চেপেছে, আরো বিশেষ কারণ হচ্ছে বিএনপির ভিতরগত চলমান সংকটের জন্যও দায়ী জামায়াত। বিশদলিয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কারাবন্দী হওয়ার পর তার মুক্তির বিষয়ে তেমন কোনো ভূমিকা রাখেনি জামায়াত, এ ছাড়াও বিতর্কিত এ দলটিকে জোট থেকে বের করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ দলিয় জোট। যদিও জামায়াত একটি ধর্মের নামে রাজনীতি করে আসছিলো মূলত তারা তাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা আবুল আলা মওদূদী মতাদর্শ বাস্তবায়ন করতে রাজনীতির মাঠে কার্যক্রম পরিচালনা করত। ধর্মের দোহাই দিয়ে রাজনীতি করা এ দলটি ধর্মের লোগো ব্যবহার করে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করা ও দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে থাকায় বিগত কয়েক বছর আগে তাদের নিবন্ধন বাতিল করে নির্বাচন কমিশন। তারপর থেকে রাজনীতির মাঠে এ দলটি এক প্রকার দেউলিয়া হয়ে উঠে, রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট, রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি দলটির। এদেশের কওমী মাদ্রাসার হেডকোয়ার্টার দারুল উলুম হাট হাজারি মাদ্রাসায় হামলার ইতিহাসও দলটির রয়েছে। বিভিন্ন সময় ওলামায়ে কেরামের উপর হামলার ঘটনাও ঘটিয়েছে দলের নেতাকর্মীরা। বিএনপির সাথে কওমী সম্পৃক্ত বেশ কয়েকটি ইসলাম পন্থী দলের যোগসাজশ থাকলে কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতির প্রধান বাধা ছিলে এ দলটি। মোদ্দা কথা ইসলামের নামে রাজনীতি করা এ দলটির মাঝে ইসলামী আদর্শের লেশমাত্রও নেই ছিলোওনা, যদিও দেরি হয়েছে অনেক তবুও বিএনপি একটি সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে মনে করি। বিএনপির সব আন্দোলন ঈদের পর নিয়ে যে হাস্যরস তামাশা মানুষ করে থাকে আশা করি ঘোষণা অনুযায়ী ঈদের পর জামায়াতকে ঘাড়ধরে জোট থেকে বের করে কথা রাখবে বিএনপি নেতৃবৃন্দ। এবার দেখা যাবে জামায়াত কার দৌড় গোড়ায় গিয়ে দাড়ায়! আওয়ামী লীগ জামায়াতকে সাথে নিয়ে যে চরম ভুল করেছিলো সেটার মাশুল এখন গুণতেছে পুনরায় যদি আওয়ামী লীগ জামায়াতকে টেনে নিয়ে পাশে বসায় তাহলে আওয়ামী ইতিহাসে এটাই হবে সবচেয়ে বড় ভুল। বিএনপি ভুল বুঝতে পেরে যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেটার উপর অটল থাকলেই স্বাধীনতার বিরুধি এ শক্তি জামায়াত ছন্ন ছাড়ার মত বিলুপ্ত হয়ে যাবে। #