ড্রেজিংয়ে স্বচ্ছতা আনার লক্ষ্যে মনিটরিং সিস্টেম’ চালু হতে যাচ্ছে -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ , জুলাই ২০, ২০২০

ড্রেজিংয়ে স্বচ্ছতা আনার লক্ষ্যে ড্রেজিং কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য ‘রিয়েল টাইম ড্রেজ মনিটরিং সিস্টেম’ চালু হতে যাচ্ছে -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

নিউজ৭১অনলাইন, ঢাকা, সোমবার, ২০ জুলাই : ড্রেজিং এর ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা আনার লক্ষ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) বিদ্যমান ড্রেজারসমূহের ড্রেজিং কার্যক্রম (ড্রেজিং এর পরিমাণ, সময় ও স্থান) মনিটরিং করার জন্য ‘রিয়েল টাইম ড্রেজ মনিটরিং সিস্টেম’ চালু করতে যাচ্ছে। আগামী এক মাসের মধ্যে এ সিস্টেমটি (একটি ড্রেজার বেইজ স্টেশনসহ পাঁচটি ড্রেজারে) পুরোদমে চালু হবে। এর ফলে ড্রেজিং এর ক্ষেত্রে বিশেষ করে পানির নিচে কি করা হচ্ছে, কতটুকু ড্রেজিং হচ্ছে সে বিষয়গুলোর স্বচ্ছতা প্রকাশ পাবে। ঘন্টা, দিন, প্রশস্থতা, গভীরতা ও এ্যালাইনমেন্ট অনুযায়ি ড্রেজিং হচ্ছে কিনা তা সহজে জানা যাবে। ড্রেজারের বিলিং সিস্টেম আরো সহজ হবে। আজ মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) সভায় এসব তথ্য জানানো হয়। নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। তিনি ঢাকায় অবস্থানরত কর্মকর্তাদের সাথে সরাসরি এবং ঢাকার বাইরের কর্মকর্তাদের সাথে জুম এ্যাপস এর মাধ্যমে আলোচনা করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ড্রেজিংয়ে স্বচ্ছতা আনার লক্ষ্যে ড্রেজিং কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য ‘রিয়েল টাইম ড্রেজ মনিটরিং সিস্টেম’ চালু হতে যাচ্ছে। করোনাকালে নৌপথ সচল রেখে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় লাইফলাইন হিসেবে কাজ করেছে। নৌপথ সচল লাখতে যা যা করণীয় সব কিছুই করা হবে। করোনাকে মানিয়ে চলতে হবে, প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করতে এগিয়ে যেতে হবে। ড্রেজিংসহ অন্যান্য কার্যক্রম স্বাস্থ্যবিধি মেনে সম্পন্ন করতে হবে। সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী এবং সংস্থা প্রধান ও সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালকবৃন্দ। উল্লেখ্য, পরীক্ষামূলকভাবে বিআইডব্লিউটিএ’র পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে রিয়েল টাইম ড্রেজ মনিটরিং সিস্টেমটি আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ থেকে অনলাইনে সরাসরি মনিটরিং’ করা হয়। প্রথম পর্যায়ে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়াঘাটে ড্রেজার বেইজ স্টেশনসহ পাঁচটি ড্রেজারে এ সিস্টেম চালু করা হবে। পর্যায়ক্রমে বিআইডব্লিউটিএ’র মোট ৪৫টি ড্রেজারে এ সিস্টেম চালু করা হবে। শিমুলিয়াঘাটে ড্রেজার বেইজ স্টেশনসহ পাঁচটি ড্রেজারে এ সিস্টেম চালু করতে খরচ হচ্ছে দু’কোটি ৪৭ লাখ ৪৬ হাজার ৮৫০ টাকা। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ইনোভেশন ফান্ড থেকে এ খরচ বহন করা হচ্ছে। আমেরিকান কোম্পানি ‘ট্রিমবল সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড কন্সট্রাকশন’ এ কাজটি করছে। আরো উল্লেখ্য যে, বিআইডব্লিউটিএ’র প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নির্দিষ্ট কর্মকর্তা এবং মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী ও সচিব ডেডিকেটেড পাসওয়ার্ডের মাধ্যমে ড্রেজিং সম্পর্কে সহজেই জানতে পারবেন। পর্যায়ক্রমে এ সিস্টেমটি স্মার্ট মোবাইল ফোনেও দেখা যাবে। বেইজ স্টেশনের ১০ কিলোমিটার ডায়ামিটারের মধ্যে রিয়েল টাইম মনিটরিং সিস্টেমযুক্ত যেকোন ড্রেজারের ড্রেজিং কার্যক্রম দূরবর্তি অফিস থেকে মনিটর করা যাবে। এ সিস্টেমটি ড্রেজারের পাশাপাশি এক্সাভেটরেও ব্যবহার করা যাবে। ‘রিয়েল টাইম ড্রেজ মনিটরিং সিস্টেম’ এর চিপসটি ড্রেজার বেইজস্টেশন ছাড়াও রিমোট এলাকায়ও ব্যবহার করা যাবে। বিআইডব্লিউটিএ এ সিস্টেম চালুর লক্ষ্যে বিটিআরসি থেকে ফ্রিকোয়েন্সি সংগ্রহ করেছে। সভায় জানানো হয় যে, নৌপরিবহন মন্ত্রনালয় ২০২০-২১ অর্থ বছরে ৪,৩৪৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫১টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এগুলোর মধ্যে এডিপিভূক্ত প্রকল্প ৪২টি এবং নিজস্ব অর্থায়নের প্রকল্প নয়টি। এডিপিভূক্ত প্রকল্পের জন্য ৩,২৬৫ কোটি ১৫ লাখ এবং নিজস্ব অর্থায়নের প্রকল্পের জন্য এক হাজার ৮১ কোটি ৪৪ লাখ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থ বছরে এরএডিপিভূক্ত এবং নিজস্ব অর্থায়নে ৫৯টি প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ ছিল ৩,৬৪১ কোটি ৩১ লাখ টাকা; যার বিপরিতে ব্যয় হয়েছে ৩,০৮৫ কোটি ৪৩ লাখ টাকা। যা বরাদ্দের ৮৪.৭৩ ভাগ। ব্যয় বরাদ্দের ক্ষেত্রে জাতীয় গড় ৮০,২৮। গত অর্থ বছরে ১১টি প্রকল্প সমাপ্ত হয়েছে এবং ১৪টি প্রকল্পের মেয়াদ এক বছর বৃদ্ধি করা হয়েছে। চলতি অর্থ বছরে ১৩টি প্রকল্প সমাপ্তির জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।