সিন্ডিকেটে মন্ত্রী, পিএস ও মন্ত্রী পুত্র!

প্রকাশিত: ৯:৩৭ পূর্বাহ্ণ , জুলাই ১৪, ২০২০

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের প্রকাশ্য পরস্পরবিরোধী বিবৃতিতে দুর্নীতির বিষয়টি স্পষ্ট৷ সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হকের মতে, ‘‘একটি শক্ত সিন্ডিকেট আছে, যার সঙ্গে মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের লোকজনও জড়িত৷’’

এই সরকারের প্রথম মেয়াদে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন ডা. আ ফ ম রুহুল হক৷ তখন তিনি নিজেও যে কথিত সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গিয়ে সফল হননি তা স্বীকার করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি  তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে এই সিন্ডিকেটের বিস্তিারিত জানিয়েছিলাম৷ তাঁকে প্রমাণ হিসেবে ডকুমেন্ট দিয়েছিলাম৷ তিনি ব্যবস্থা নিতেও বলেছিলেন৷’’

ডা. আ ফ ম রুহুল হক মনে করেন, সেই সিন্ডিকেটগুলো এখনো সক্রিয়৷ উপরন্তু নতুন সিন্ডিকেটও যুক্ত হয়েছে৷ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের চলতি বছরের মে মাসে পাঠানো এক নথিতে দেখা যায়, গত ১৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে মিঠু নামে একজন এই সিন্ডিকেটের মূল নেতৃত্বে৷ মিঠু এখন দেশের বাইরে৷ তবে তার নিয়ন্ত্রণেই এখনো সিন্ডিকেট চলে৷ ওই নথিতে সিন্ডিকেটের অংশ হিসেবে একজন সাবেক মন্ত্রী, একজন বর্তমান মন্ত্রী, তার পিএস ও তার ছেলের নামও রয়েছে৷ নাম রয়েছে একজন অতিরিক্ত সচিবেরও৷ বর্তমান মন্ত্রী, তার পিএস এবং মন্ত্রীর ছেলে এই সময়ে নানা অর্ডার ও কেনাকাটায় প্রভাব খাটাচ্ছেন বলে নথিতে বলা হয়েছে৷

রিজেন্ট এবং জেকেজি
রিজেন্ট হাসপাতাল এবং জেকেজি হেলথ কেয়ার নিয়ে এখন মন্ত্রণালয়এবং অধিদপ্তর পরস্পরের ওপর দায় চাপাচ্ছে৷ অধিদপ্তর বিবৃতি দিয়ে বলেছে, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে করোনা চিকিৎসার চুক্তি করা হয়৷ তখন অন্য কোনো হাসপাতাল করোনা রোগী ভর্তি করাতে চাইতো না৷এ কারণে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে শোকজ করা হয়েছে রবিবার৷ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষ বলতে কী বোঝানো হয়েছে তার ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে৷ আরো জানতে চাওয়া হয়েছে, সরেজমিন না দেখে চুক্তি করার কারণ৷

তবে জেকেজি হেলথ কেয়ারকে বিনামূল্যে করোনা টেস্টের দায়িত্ব অধিদপ্তরই দিয়েছে৷ তাদের কথা, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ফার্ম হলেও প্রতিষ্ঠানটির পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকায় কাজ দেয়া হয়েছে৷ তাছাড়া রিজেন্ট হাসপাতালের লাইসেন্স নবায়ন করা হবে বলেও চুক্তিতে বলা হয়েছিল৷

এ প্রসঙ্গে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. রুহুল হক বলেন, ‘‘ডিজি মহোদয়ের বিবৃতি এবং মন্ত্রণালয়ের কারণ দর্শানোর নেটিশেই আসলে বোঝা যায় কাজ-কর্মে অসঙ্গতি আছে৷ তাদের যে চাপের মুখে কাজ দেয়া হয়েছে তা বোঝা যায়৷ এখন তদন্ত করলে জানা যাবে তারা কারা৷’’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরকেন্দ্রিক সিডিকেটগুলো খুবই প্রভাবশালী৷ একই সিন্ডিকেট বিএনপি’র আমলেও সক্রিয় ছিল৷ সরকার বদলালেও তাদের ক্ষমতার কোনো পরিবর্তন হয় না৷ রুহুল হকের দাবি, তিনি চেষ্টা করেও এই সিন্ডকেট দমনে ব্যর্থ হয়েছিলেন৷ তার কথা, এখানে মন্ত্রীদেরও করার কিছু থাকে না৷ তারা নানা নামে কাজ করে৷ তাদের সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের লোকজনও জড়িত৷ মন্ত্রণালয় এবং অধিদপ্তর ও বাইরের প্রভাবশালীরা মিলেই সিন্ডিকেটটা করে৷ আর এ কারণেই নিয়মের বাইরে গিয়ে অবৈধ রিজেন্ট হাসপাতাল ও জিকেজি হেলথ কেয়ার চুক্তি করতে সক্ষম হয়েছে৷ কোনো নিয়মেই তদের সাথে চুক্তি হয় না৷ অনেক দক্ষ প্রতিষ্ঠান ও এনজিও আছে স্বাস্থ্য খাতে৷ তাদের সাথে চুক্তি করা যেতো বলে মনে করেন তিনি৷

রুহুল হক বলেন, ‘‘স্বাস্থ্য খাতে এই সিন্ডিকেট নিয়ে আমি যখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী, তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছিলাম৷ আমি এর সাথে জড়িত কর্মকর্তা ও বাইরের যারা সিন্ডিকেটের সদস্য, তাদের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছিলাম৷ প্রধানমন্ত্রী সেগুলো দেখে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলেছিলেন৷ আমি নিজে কাগজপত্র এজেন্সিকে দিয়েছিলাম৷ তারপর কী হয়েছে এখন মনে করতে পারছি না৷’’ মিঠু সিন্ডিকেট বিএনপির আমলে ছিল, এখনো আছে বলে মনে করেন তিনি৷দুদক তদন্ত শুরু করেছে
দুদক এরই মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ৯০০ কোটি টাকার পিপিই এবং মাস্ক দুর্নীতির তদন্ত শুরু করেছে৷ রিজেন্ট হাসপাতাল ও জিকেজি হেলথ কেয়ারের বিষয় নিয়েও প্রাথমিক অনুসন্ধান শুরু করেছে৷ রিজেন্টের মালিক মো. সাহেদের সম্পদের হিসাব দেখা হচ্ছে৷ অভিযোগ রয়েছে, জেকেজি ফ্রি করোনা টেস্টের কথা বলে টাকা নিয়েছে এবং পরীক্ষা না করেই রিপোর্ট দিয়েছে৷ তারা সরকারের টেস্টিং পিসিআর ও কিট ব্যবহার করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে৷ এসবে কারা কারা জড়িত তা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে৷ দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন,‘‘ আমাদের কাছে সব নথি এসেছে৷ আমরা সংশ্লিষ্টদের ডাকা শুরু করেছি৷ প্রয়োজনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিব এবং অধিদপ্তরের মহাপরিচালককেও ডাকা হবে৷’’

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যে ৯০০ কোটি টাকার মাস্ক ও পিপিই কিনেছে তার কোনো বৈধ অনুমতিপত্র নেই৷ বলা হচ্ছে, মৌখিক নির্দেশে কেনা হয়েছে৷ দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘‘মৌখিক নির্দেশ বলে সরকারি ক্রয় আইনে কিছু নেই৷ এখন পরস্পরকে দোষারোপ করে কেউই রেহাই পাবেরনা৷’’

কথা বলেন মুখপাত্র
এসব ঘটনাায় স্বাস্থ্য মহাপরিচালক, স্বাস্থ্য সচিব ববং স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেউই আর কথা বলছেন না৷ তাদের ফোন করেও পাওয়া যায়নি৷ তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র সহকারি পরিচালক ডা. আয়েশা আক্তার বলেন, ‘‘বিবৃতি আর শোকজ বসদের ব্যাপার৷ এটা নিয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না৷ তবে মহাপরিচালক তিন দিনের মধ্যে জবাব দেবেন৷’’

‘‘দুর্নীতি অনিয়মের তদন্তে যারা দায়ী হবেন তারা শাস্তি পবেন৷ আমাদের সবাই খারাপ না৷ আমরা জনগণের সেবায় কাজ করি৷ কিছু আছেন, যারা সিন্ডিকেটের সাথে জড়িত থাকতে পারেন৷ সরল বিশ্বাসে রিজেন্ট এবং জেকেজিকে কাজ দিয়ে আমরা প্রতারিত হয়েছি,’’ বললেন আয়েশা আক্তার৷ DW