দুর্নীতি খেয়ে ফেলছে স্বাস্থ্যখাতকে

প্রকাশিত: ১১:০৯ পূর্বাহ্ণ , জুন ২০, ২০২০

করোনা বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের আসল চেহারা খুলে দিয়েছে৷ দেখিয়ে দিয়েছে এই খাতটি কতটা দুর্বল৷ এখনই বাংলাদেশে করোনা রোগীদের জন্য কোনো আইসিইউ বেড খালি নেই৷ আর সাধারণ স্বাস্থ্যব্যবস্থা বলতে গেলে ভেঙে পড়েছেবাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের এই দুর্বলতার কারণ কী? সাধারণ চোখে মনে হবে বাংলাদেশে স্বাস্থ্যখাতে কম বাজেটই এর কারণ৷ আর প্রশ্ন করলে এই খাত নিয়ে যারা ভাবেন তারা আরো অনেক কারণ দেখান৷ কিন্তু সবার কাছ থেকেই একটি কথা ‘কমন’ শোনা যায়, আর তা হলো দুর্নীতি৷ এবার স্বাস্থ্যখাতে বাজেটে বেশি বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে৷ তারপরও আশা জাগছেনা৷ কারণ এই বরাদ্দ যদি দুর্নীতির পেটে চলে যায় তাহলে বাজেট বাড়িয়ে কী লাভ? বিশ্লেষকরা বলছেন স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়ন বরাদ্দের শতকরা ৮০ ভাগই দুর্নীতির পেটে চলে যায়৷

স্বাস্থ্যব্যবস্থার চিত্র

বাংলাদেশে সরকারি চিকিৎসক আছেন ৩০ হাজার৷ আর সবমিলিয়ে নিবন্ধিত চিকিৎসক আছেন এক লাখের মতো৷ এর সঙ্গে স্বাস্থ্যকর্মীর হিসেব ধরলে সব মিলিয়ে এক লাখ ৩০ হাজারের বেশি নয়৷

বাংলাদেশে এখন সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে মোট হাসপাতালের সংখ্যা সাত হাজার ৩১২টি৷ এরমধ্যে সরকারি হাসপাতাল দুই হাজার ২৫৮টি, যার মধ্যে কমিউনিটি ক্লিনিকও ধরা হয়৷ পূর্ণাঙ্গ হাসপাতাল ২৫৪টি৷ বাংলাদেশে এখন এক হাজার ৫৮১ জনের জন্য একজন নিবন্ধিত চিকিৎসক আছেন৷

সরকারি হাসপাতালে বেডের সংখ্যা ৫২ হাজার ৮০৭টি৷ আর বেসরকারি হাসপাতালে বেডের সংখ্যা ৯০ হাজার ৫৮৭টি৷ বাংলাদেশের এখন মোট জনসংখ্যা ১৭ কোটির বেশি৷

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী মনে করেন, ‘‘বাজেট কম হওয়ায় বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের এই চিত্র এটা যেমন সত্য, তেমনি বাজেটের অধিকাংশ বরাদ্দ দুর্নীতির কারণে স্বাস্থ্যখাতের কোনো কাজে আসেনি৷ পরিকল্পনা হয়েছে আমলা নির্ভর৷ ফলে স্বাস্থ্যখাতের কোথায়, কী প্রয়োজন তার সঠিক পরিকল্পনা হয়নি৷’’ একজন ডাক্তারের বিপরীতে নার্স থাকতে হয় তিন জন৷ কিন্তু আমাদের আছে আধা জন, জানালেন এই চিকিৎসক নেতা৷স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতি

গত বছর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির ১১টি খাত চিহ্নিত করে৷ তার মধ্যে বেশি দুর্নীতি হয়: কেনাকাটা, নিয়োগ, পদোন্নতি, বদলি, পদায়ন, চিকিৎসাসেবা, চিকিৎসাসেবায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি ব্যবহার, ওষুধ সরবরাহ খাতে৷ সাদা চোখে দেখা দুর্নীতির বাইরে একটি অভিনব দুর্নীতির কথাও তখন বলে দুদক৷ আর তা হলো, দুর্নীতি করার জন্য অনেক অপ্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনা৷ এমন যন্ত্রপাতি কেনা হয় যা পরিচালনার লোক নেই৷ ওইসব যন্ত্রপাতি কখনোই ব্যবহার করা হয়না৷

দুদক তখন এই দুর্নীতি প্রতিরোধে ২৫ দফা সুপারিশ করে বলে, দুর্নীতির কারণেই স্বাস্থ্যখাতের করুন অবস্থা৷ তারা তাদের এই তদন্তপত্র স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের হাতে তুলে দিয়েছিলেন ব্যবস্থা নেয়ার জন্য৷ কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা চোখে পড়েনি৷

২০১৭-১৮ অর্থবছরে কমপক্ষে এক হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে স্বাস্থ্যখাতের যন্ত্রপাতি কেনায়৷ ২৭টি সরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কেনাকাটার তথ্য নিয়ে সংবাদমাধ্যম দুর্নীতির এই চিত্র প্রকাশ করে৷

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জন্য যন্ত্রপাতি কেনাকাটায় প্রকৃত মূল্যের চেয়ে ১৮৬ গুণ বেশি দাম দেখানো হয়েছে৷ এক সেট পর্দার দাম দেখানো হয়েছে ৩৭ লাখ টাকা৷ ১৭৫ কোটি টাকার নিম্নমানের যন্ত্রপাতি কেনা হয় গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের জন্য৷ রংপুর মেডিকেল কলেজে প্রয়োজন না থাকা সত্ত্বেও চার কোটি টাকার সার্জিক্যাল যন্ত্রপাতি কেনা হয়, যা কখনোই ব্যবহার করা হয়নি৷

২০১৭ সালে টিআইবির খানা জরিপে স্বাস্থ্যখাতকে দুর্নীতিগ্রস্ত খাত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়৷ জরিপে অংশ নেয়া ৪২.৫ ভাগ মানুষ স্বাস্থ্যসেবা নিতে গিয়ে ঘুস দুর্নীতির শিকার হয়েছেন৷

সর্বশেষ এই করোনার মধ্যে চিকিৎসকদের জন্য পিপিই এবং এন-৯৫ মাস্ক কেলেঙ্কারির কথা সবার জানা৷ এখনো তদন্তই চলছে, ব্যবস্থা নেয়া হয়নি৷

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামাান বলেন , ‘‘কোভিড-এর কারণে স্বাস্থ্যখাতে দুই ধরনের দুর্নীতি প্রকাশ পেয়েছে৷ প্রথমত: স্বাস্থ্যসেবা খাতে দুর্নীতি এবং দ্বিতীয়ত: স্বাস্থ্য অবকাঠামো খাতে দুর্নীতি৷ ক্রয় ও বিতরণ প্রক্রিয়ায় এই খাতে দুর্নীতি সবচেয়ে বেশি ৷ আমরা এই করোনা সংকটের মধ্যেও সেই দুর্নীতি দেখেছি৷’’বাজেট

প্রস্তাবিত বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে৷ স্বাস্থ্য খাতে ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য মোট ৪১ হাজার ২৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে, যা মোট বাজেট বরাদ্দের ৭.২ ভাগ এবং জিডিপির ১.৩ ভাগ৷ তবে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের জন্য বরাদ্দ ২৯ হাজার ২৪৭ কোটি টাকা৷ ২০১৯-২০ সালে বরাদ্দ ছিলো ২৯ হাজার ৪৬৪ কোটি টাকা, যা মোট বরাদ্দের ৫.৬৩ ভাগ৷ এবার বাজেটে আগের চেয়ে তিন হাজার ৫১৫ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ করা হয়েছে৷ আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ ছিলো ২২ হাজার ৩৩৬ কোটি টাকা৷ স্বাস্থ্যখাতের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে ১৩টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ৷ স্বাস্থ্যখাতে প্রস্তাবিত বাজেটের ১৬ হাজার ৭৪৭ কোটি টাকাই অবশ্য পরিচালন ব্যয়৷

এবার করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাস্থ্যখাতের বাজেট বাড়ানো হয়েছে ১৩ শতাংশেরও বেশি৷ আর করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় জরুরি কোনো চাহিদা মেটানোর জন্য ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে৷ অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন কোভিড-১৯ মোকাবিলায় স্বাস্থ্যবিভাগ আরো সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকার বিশেষ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে৷বিএমএ মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, ‘‘স্বাস্থ্যখাতে বাজেট বেড়েছে ভালো কথা৷ কিন্তু এটা পরিকল্পনাহীন৷ থোক বরাদ্দ কোনো সুনির্দিষ্ট বিষয় নয়৷ এর ফলে যা হয়, এই বরাদ্দের ৮০ ভাগ চলে যায় ব্যক্তিগত তহবিলে৷ দুর্নীতি খেয়ে ফেলে৷ তাহলে আর বরাদ্দ বাড়িয়ে লাভ কী?’’

দুর্নীতি প্রতিরোধে বাজেটে কোনো পরিকল্পনার কথা বলা হয়নি৷ বিশেষ করে স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি নিয়ে অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় কিছু বলেননি৷ ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘‘এটা একটা দুর্নীতি সহায়ক বাজেট হয়েছে৷ তাই বরাদ্দ বাড়লেই যে স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়ন হবে তা আশা করা যায়না৷’’

তাহলে সমাধান কী?
দুর্নীতিই আগে প্রতিরোধ করতে হবে৷ বাংলাদেশে এপর্যন্ত স্বাস্থ্যখাতে যে বরাদ্দ হয়েছে তা যদি স্বাস্থ্য ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের নিয়ে পরিকল্পনা করে ব্যবহার করা হতো তাহলে স্বাস্থ্যখাতের চেহারা অন্যরকম হতো৷ এর সঙ্গে জনবল বাড়াতে হবে৷ জোর দিতে হবে স্বাস্থ্য শিক্ষা এবং গবেষণায়৷ আর সেবাটা হতে হবে অংশগ্রহণ ও জবাবদিহিমূলক৷ সব হাসপাতালে স্থানীয়দের নিয়ে পরিচালনা পর্ষদ গঠনের নিয়ম থাকলেও তা হয়না৷ আর যেখানে আছে তা কার্যকর নয়৷ ডা. এহতেশামুল হক বলেন, ‘‘সরকারি চাকরিজীবী, মন্ত্রী, এমপি ও জনপ্রতিনিধিদের যার যার এলাকার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া বাধ্যতামূলক করতে হবে৷ তাহলে তারা নিজেরাই পরিস্থিতি দেখবেন এবং উন্নয়নে মনোযোগী হবেন৷’’ DW