নোয়াখালীতে মা-মেয়েকে পিটানোর অভিযোগে থানায় মামলা,আহত-২

প্রকাশিত: ৭:৩৩ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ১১, ২০২১

নোয়াখালী পৌর এলাকায় মেয়েকে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায়  প্রকাশ্যে মাকে মেকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে।স্থানীয় সূএে জানা গেছে,গত শনিবার সন্ধ্যার দিকে নোয়াখালী পৌরসভার উত্তর মাইজদী এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটেছে।এ সময়  স্থানীয়রা ঘটনাস্থল থেকে সৌদি প্রবাসীর স্রী(২৫) ও তার মা জোবেদা খানম(৫৫)কে গুরুত্ব আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় আহত মহিলা বাদী হয়ে,গতকাল রবিবার সুধারাম মডেল থানায় একটি লিখিত মামলা দায়ের করেন। আহত মহিলা জোবেদা খানম জানান,থানায় মামলা দায়ের করার পরে ও এখন পর্যন্ত পুলিশ অভিযুক্ত আসাামির বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।

মামলার বিবরণে জানা গেছে,  পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের প্রবাসী স্রী (২৫) কে দীর্ঘদিন ধরে উত্তর মাইজদী গ্রামের মৃত নুরুল হকের ছেলে আবদুল কাইয়ুম (৪৮) উত্যক্ত করে ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। মেয়েটি তার কুপ্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে,পরে শনিবার বিকেলে প্রবাসীর স্রী কেনাকাটার উদ্দেশ্যে বাড়ী থেকে বের হয়ে রাস্তার আসলে।

আবদুল কাইয়ুম তার সাথে  অশালীন আচরণ শুরু  করে।একপর্যায়ে তার ওড়না ধরে টানা হিঁচড়ে করে।পরে উত্যক্তের বিরুদ্ধে মা ও মেয়ে প্রতিবাদ করায় আবদুল কাইয়ুম তার সহযোগী জুয়েল নামে এক সন্রাসীকে মোবাইল করে আরো ৭/৮ জনকে ডেকে ঘটনাস্থলে আনেন।

এ সময় আবদুল কাইয়ুম ওই মহিলাকে চুলের মুঠি ধরে রাস্তার উপর টেনে হিঁচড়ে মাটির ওপর পেলে এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি ও লাথি মারতে থাকে। একপর্যায়ে  হামলাকারীরা তার প্রবাসীর স্রীর শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দিয়ে শ্লীলতাহানি করে।

তাদের মা-মেয়ে দুজনকে টেনে হিঁচড়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে,পরে তাদের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে হামলাকারীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে দৌড়ে  পালিয়ে যায় এবং যাওয়ার সময় মা-মেয়ে দুজনকে এডিস নিক্ষেপ করার হুমকি দেয়।

মেয়ের  স্বামী সৌদি প্রবাসী হওয়ায় সুবাদে  সে তার মায়ের সাথে থাকে।দীর্ঘদিন থেকে আমাদের প্রতিবেশী আবদুল কাইয়ুম নানা ভাবে তাকে উত্যক্ত ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে তার কু-প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় সে ক্ষিপ্ত হয়ে  মা ও মেয়ের ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তাদের দুজনকেই তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছে।এ ঘটনায় পুলিশ আবদুল কাইয়ুমকে আটক করে রহস্য জনক কারনে ছেড়ে দেন।

এ ঘটনায়  অবস্থায় মা-মেয়ে দুজনেই  নিরাপত্তারহীনতায় ভুগছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আব্দুল কাইয়ুম বলেন,তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগটি মিথ্যা ও বানোয়াট। রায়হান নামের এক যুবকের সাথে পানি সেচ দেওয়াকে কেন্দ্র করে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।তিনি কোন মহিলা ও তার মেয়ের গায়ে হাত তুলেননি।

এ বিষয়ে সুধারাম মডেল থানার (ওসি) মোঃশাহেদ উদ্দিন বলেন,নারীকে মারধর কিংবা শ্লীলতাহানির কোন ঘটনা ঘটেনি। এটা জমি সংক্রান্ত বিরোধ ছিলো  এঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।থানা পুলিশ অভিযোগগুলো তদন্তকরে আইনগত ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান