যাত্রী দ্বিগুণ ভাড়াও দ্বিগুণ

প্রকাশিত: ২:৩১ পূর্বাহ্ণ , জুন ৫, ২০২০

করোনায় সামাজিক দূরত্ব মানতে বাস মিনিবাসে যত সিট তার অর্ধেক যাত্রী নেবে বলে ভাড়া ৬০ ভাগ বাড়ানো হয়েছে৷ কিন্তু বাস্তবে তিন দিনের মধ্যেই সামাজিক দূরত্ব অনেকটাই উধাও হয়ে গেছে৷ আর বাস ভাড়া আদায় করা হচ্ছে দ্বিগুণ৷
একজন পরিবহণ নেতা তাই বাস মালিকদের ক্ষমতাকে বলেছেন, ‘সরকারের ওপর সরকার’৷ এরই মধ্যে সংবাদমাধ্যমে ঢাকার কয়েকটি এলাকায় বাসে শতভাগ যাত্রীই শুধু নয়, বাদুড়ঝোলা যাত্রীদের যাতায়াতের ছবিও ছাপা হয়েছে৷ আর এই পরিস্থিতি সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ছে সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ি ও গুলিস্তান এলাকায়৷ সকালের দিকে কিছুটা সামাজিক দূরত্ব দেখা গেলেও বিকেলে অফিস ছুটির পর পরিস্থিতি আর নিয়ন্ত্রণে থাকে না৷ যাত্রীতে বাস ভরে যায়৷ এখনো অফিস আদালত, দোকানপাট শত ভাগ খোলেনি৷ উপস্থিতিও কম৷ সামনের সপ্তাহে তাই বাসে যাত্রীদের ভিড় আরো বাড়বে৷

তালিকা না থাকায় ভাড়ায় নৈরাজ্য
যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন,‘‘আগেই বলেছিলাম বাসে বিশেষ করে সিটি সার্ভিসে সামাজিক দূরত্ব মানা হবে না৷ কারণ এখানে কোনো টিকিট সিস্টেম নাই৷ বাসেই নগদে ভাড়া আদায় করা হয়৷ তাই যাত্রী ওঠা নিয়ন্ত্রণ করা যায় না৷ মালিকরা আসলে করোনাকে বাস ভাড়া বাড়ানোর কৌশল হিসেবে ব্যবহার করেছে৷ তাই এখন সামাজিক দূরত্ব মানা না হলেও ঠিকই বাড়তি বাস ভাড়া আদায় করা হচ্ছে৷ এটা আর কমবে বলে মনে হয় না৷’’

আর সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. হানিফ খোকন বলেন,‘‘বাস ভাড়া আগেই মালিকরা বাড়িয়ে দিয়েছিল৷ ২০১৬ সালে যে বাস ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছিল তার চেয়ে ৩০-৪০ ভাগ বেশি ভাড়া তারা আগেই নিত৷ এখন যে ৬০ ভাগ বাড়ানো হয়েছে সেটা মালিকরা ওই ভাড়ার ওপরই নতুন করে নিচ্ছে৷’’ তিনি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘‘সিলেটের মৌলভী বাজার থেকে ঢাকার সায়েদাবাদের দূরত্ব ২০৮ কিলোমিটার৷ আগে প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ছিলো এক টাকা ৪২ পয়সা৷ শতকরা ৬০ ভাগ বাড়লে হয় দুই টাকা ২৭ পয়সা৷ এর সঙ্গে যদি ব্রিজের টোল যোগ করা হয় ২৫টাকা তাহলে এখন যাত্রী প্রতি ভাড়া হওয়ার কথা ৪৭৫ টাকা৷ কিন্তু এখন যাত্রী প্রতি বিভিন্ন পরিবহণ ভাড়া নিচ্ছে ৭৬০-৮০০ টাকা৷’’

গণপরিবহণ ও দূরপাল্লার বাস নতুন ভাড়ায় চারদিন ধরে চালু হলেও এখনো ভাড়ার কোনো তালিকা প্রকাশ করেনি বিআরটিএ৷ তালিকায় বিভিন্ন রুটের দূরত্ব এবং ভাড়া কত তা লেখা থাকে৷ সেটা প্রকাশ না করায় বাসে মিনিবাসে ইচ্ছেমত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে৷ মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন,‘‘ভাড়ার চার্ট প্রকাশ করলে দেখা যাবে ৬০ ভাগ ভাড়া বাড়ার ফলে নতুন যে ভাড়া হওয়ার কথা সেই ভাড়া আগে থেকেই আদায় করা হচ্ছে৷ ফলে চার্ট প্রকাশ করা হচ্ছে না৷ বাড়তি ভাড়ার ওপর আবার নতুন করে ৬০ ভাগ বেশি নেয়া হচ্ছে৷ বাস ভাড়ায় এখন চলছে নৈরাজ্য৷

‘‘গুলিস্তান থেকে ফার্মগেটের দূরত্ব পাঁচ কিলোমিটার৷ আগের হিসেবে ভাড়া হওয়ার কথা আট টাকা৷ কিন্তু আদায় করা হয়েছে ১৫ টাকা৷ এখন ৬০ ভাগ ভাড়া বাড়ানোর পর ভাড়া হবে ১৩ টাকা৷ কিন্তু আদায় করা হচ্ছে ৩০ টাকা৷ তাই বাস্তবে দ্বিগুণের বেশি ভাড়া বেড়েছে৷’’
ভাড়া বাড়ানোর কোনো যুক্তি ছিলো?
এই দু’জনই মনে করেন বাসের ভাড়া বাড়ানোর কোনো যুক্তি ছিল না৷ কারণ বাসের ভাড়া নিয়মের বাইরে আগেই মালিকেরা বাড়িয়েছেন৷ আর বেশ কিছু খাত আছে যাতে স্বচ্ছতা আনলে বাসের ভাড়া বাড়ানোর প্রয়োজন পড়ে না৷ মোজাম্মেল হর চৌধুরী বলেন,‘‘বাসের ভাড়া ২০১৬ সালে যখন নির্ধারণ করা হয় তখন ৩০ ভাগ সিট খালি রেখে নির্ধারণ করা হয়৷ ধরে নেয়া হয় ওই পরিমান সিট খালি থাকবে৷ আর প্রতিটি বাসে অনুমোদিত আসনের চেয়ে ১২ থেকে ১৫টি সিট বেশি আছে৷ ফলে এখানে প্রায় ৪০ ভাগ বাড়তি সিট পাওয়া যায়৷ এর ওপর বাস প্রতি এক থেকে দুই হাজার টাকা চাঁদা দিতে হয় দিনে৷ জ্বালানি তেলের দাম বিশ্বে এখন সর্বনিম্ন পর্যায়ে ৷ কিন্তু এখানে কমানো হচ্ছে না৷

‘‘সিটের হিসাব ঠিকমতো করলে, চাঁদাবাজি বন্ধ হলে এবং তেলের দাম কমালে কোনো ভাবেই ভাড়া বাড়ানোর প্রয়োজন পড়ে না৷ আর ভাড়াতো তারা আগে থেকেই বেশি নিচ্ছে৷’’

এদিকে হানিফ খোকন বলেন,‘‘চাঁদাবাজি বন্ধ হয়নি৷ তারা বলছে এখন মাত্র স্ট্যান্ডে ৭০ টাকা চাঁদা নেয়া হয় প্রতিটি বাস থেকে৷ কিন্তু বাস্তবে এখনো ঘাটে ঘাটে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে৷ এই যে চাঁদা, বাড়তি ভাড়া এটা শ্রমিকেরা পায় না, পায় মালিক৷ সরকার ভাড়া বাড়িয়েছে ৬০ ভাগ৷ কিন্তু বাস্তবে তারা বাড়িয়েছে ১২০ ভাগ৷ সরকার হচ্ছে সরকার আর পরিবহণ মালিকেরা হচ্ছে সরকারের ওপর সরকার৷ তারা যা চায় তাই করে৷’’

মলিকরা যা বলছেন
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্ল্যাহ দাবী করেন, ভাড়া কেউ বেশি নিচ্ছেন না৷ তবে দুই-এক জায়গায় হতে পারে৷ তিনি বলেন,‘‘প্রায় পাঁচ বছর পর বাসভাড়া বাড়ানো হয়েছে, যেখানে প্রতিবছর বাড়ানো উচিত ছিলো৷ গাড়ি, যন্ত্রাংশ সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে৷ তাই এই ভাড়া বাড়ানোর পরও আমরা লোকসানে আছি৷ তবে সরকারের বেধে দেয়া ভাড়ার বেশি কেউ নিচেছ না৷ কোথাও কোথাও হতে পারে৷ তবে সেটা খুবই সামান্য৷ ৯৫ ভাগ ঠিক আছে৷ এটা ঢাকা শহরে দুই-এক জায়গায় হতে পারে৷ কিন্তু আমাদের নির্দেশ হলো সামাজিক দূরত্ব মানতে হবে৷ সারাদেশে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছি কোনো চাঁদাবাজি করা যাবে না৷ চাঁদা বন্ধ৷’’ DW