ব্যাবহারের কার্যকারিতা প্রমাণসাপেক্ষ

করোনার চিকিৎসায় রেমডেসিভির

প্রকাশিত: ৮:৩১ অপরাহ্ণ , মে ৩০, ২০২০

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে করোনা রোগীর চিকিৎসায় অ্যান্টি ভাইরাল অন্যান্য ওষুধের মত রেমডেসিভির ব্যাবহারের কার্যকারিতার তেমন কোন প্রমান এখন পর্যন্ত পাওয়া যায় নাই।
জাতিসংঘের স্বাস্থ্য বিষয়ক এই সংস্থাটির পক্ষ থেকে প্রকাশিত নতুন স্বাস্থ্যবিধিতে করোনাভাইরাসের চিকিৎসার বিকল্প হিসেবে প্লাজমা থেরাপি না দেয়ারও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ স্বাস্থ্যবিধিটি এমন এক সময় প্রকাশিত হল যখন বাংলাদেশের কয়েকটি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান করোনা রোগীর চিকিৎসার জন্য সরকারের অনুমোদন নিয়ে রেমডেসিভির উৎপাদন শুরু করেছে। এছাড়া, অন্যান্য কয়েকটি দেশের মত বাংলাদেশে করোনা রোগীর চিকিৎসায় প্লাজমা থেরাপিও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠতে শুরু করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় অ্যান্টি ভাইরাল ওষুধের কোনটিরই উচ্চমানের ইতিবাচক ফল পাওয়ার প্রমাণ মেলেনি বরং এসসকল ওষুধের জটিল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। সংস্থাটি সাফ জানিয়ে দিয়েছে করোনাভাইরাসের চিকিৎসার জন্য কোনধরনের অ্যান্টি ভাইরাল ওষুধ ব্যবহারের অনুমোদন তারা এখন পর্যন্ত দেয় নাই।
এদিকে, করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাংলাদেশকে ৭৩ কোটি ২০ লাখ অ্যামেরিকান ডলার বা ৬২২২ কোটি টাকা ঋণ সহায়তা দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফ। আইএমএফ এর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে জরুরি সহায়তার অংশ হিসেবে শূন্য সুদে দেয়া শর্তহীন এই ঋণ সহায়তা জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা, সামাজিক নিরাপত্তা জোরদার এবং অর্থনীতিকে সঠিক পথে রাখতে যে প্রণোদনা কর্মসূচি বাংলাদেশ নিয়েছে তা বাস্তবায়নে ব্যয় করা যাবে।