ওয়াশিংটন ও ভিয়েনায় শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উদযাপন

প্রকাশিত: ৫:১৫ অপরাহ্ণ , আগস্ট ৬, ২০২০

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী ওয়াশিংটন ও ভিয়েনায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপিত হয়েছে।

জন্মদিন উপলক্ষে দূতাবাস প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, শেখ কামালের কর্ম ও জীবনীর উপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, জন্মদিনের কেক কাটা এবং বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করা হয়। আজ ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ খবর জানানো হয়।

অন্যদিকে, ৫ আগস্ট বুধবার ভিয়েনার দূতাবাস মিলনায়তনে এক বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। বিকেল চারটায় দূতাবাস প্রাঙ্গণে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের কার্যক্রম শুরু হয়। অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ শেখ কামালের বর্ণাঢ্য জীবনের ওপর সাধারণ আলোচনা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন এবং দূতাবাসের মিনিস্টার (প্রেস) শামিম আহমদ আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন।

শেখ কামালের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে রাষ্ট্রদূত জিয়াউদ্দিন বলেন, শেখ কামালের কর্ম ও আদর্শ বাংলাদেশের নতুন ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য অনুকরণীয় হয়ে আছে এবং থাকবে। শেখ কামাল দেশ স্বাধীন হবার পর ছাত্র ও যুব সমাজকে লেখাপড়ার পাশাপাশি ক্রীড়া এবং সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ, চরিত্র গঠন এবং দেশ পুনর্গঠন কাজে উদ্ভুদ্ধ করেছেন।

ভিয়েনায় শেখ কামালের বর্ণাঢ্য কর্মজীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন রাষ্ট্রদূত ও স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের সকল গুণাবলি শেখ কামালের মধ্যে বিদ্যমান ছিল। বর্তমান প্রজন্মকে শেখ কামালের জীবন ও কর্ম সম্পর্কে বেশি করে জানতে হবে এবং তাঁর গুণাবলী প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে দিতে হবে। জীবনের উৎকর্ষ সাধনে শেখ কামাল বৃদ্ধ ও যুব সমাজের হৃদয়ে অনুপ্রেরণার প্রতীক হয়ে বেঁচে থাকবেন।

পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।