বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর আত্নহত্যা!

প্রকাশিত: ৭:৪১ অপরাহ্ণ , আগস্ট ২, ২০২০

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) এক শিক্ষার্থী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। ওই শিক্ষার্থীর নাম সুপ্রিয়া দাস। তিনি গণিত বিভাগের চতুর্থ ব্যাচের শিক্ষার্থী। এর আগে  সুপ্রিয়ার প্রেমিক তপু মজুমদার গত ১৫ জুন আত্মহত্যা করেন। এর দেড় মাস পরেই ঘটলো এই ঘটনা।

শনিবার সন্ধ্যায় ফারিদপুরের নিজ বাড়িতে সুপ্রিয়া দাস আত্মহত্যা করেন।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. সুব্রত কুমার জানান, ‘খবর শুনে সন্ধ্যায় তার বাবার সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হয়েছে। এটা খুবই মর্মান্তিক ঘটনা। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানাই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) শিক্ষার্থী তপু মজুমদারের সঙ্গে উচ্চমাধ্যমিক থেকেই প্রেমের সম্পর্ক ছিল সুপ্রিয়ার। দুজনের বাসা একই এলাকায়। উভয় পরিবার মেনেও নিয়েছিল তাদের সম্পর্ক। করোনার মধ্যেও সুপ্রিয়ার বাসায় এসেছিল তপু মজুমদার। গত ১৪ জুন রাতে দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়। কান্না করতে করতে সুপ্রিয়া ঘুমিয়ে পড়ে। ঘুম থেকে উঠে দেখতে পায় অনেক এসএমএস। তাৎক্ষণিক ফোন করলে সুপ্রিয়া জানতে পারে তপু আত্মহত্যা করেছে।

এরপরই মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে সুপ্রিয়া। তপুর আত্মহত্যার জন্য সামাজিকভাবে তাকে দোষারোপসহ নানান কটূক্তি করা হয়। সামাজিক ও মানসিক চাপেই সুপ্রিয়া আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে বলে মনে করেন তার কাছের বন্ধুরা।

এদিকে সুপ্রিয়ার এমন আত্মহননে শোকের ছায়া নেমে এসেছে ক্যাম্পাসে। দাবি উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয়ে মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শ সেল গঠনের।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মিজানুর রহমান বলেন, অপ্রত্যাশিত মৃত্যু সত্যিই বেদনাদায়ক। এ ধরনের আত্মহত্যা রোধে মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শ সেল অত্যন্ত জরুরি।