অনলাইন ডেস্ক :

শরীয়তপুর পদ্মার ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে নড়িয়া উপজেলা

মোঃ জাভেদ শেখ, শরীয়তপুর।।


পদ্মার ভয়াবহে ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে শত শত কোটি টাকার সম্পদ। শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় গত কয়েক বছর যাবত দেখা দিয়েছে পদ্মা নদীর তীব্র ভাঙন।


এ বছর বর্ষার প্রথমেই শুরু হয়েছে নদী ভাঙ্গন। ক্রমশ বেড়েই চলছে আগ্রাসী পদ্মার ভয়াবহ ভাঙ্গন। এতে অল্প কয়েক দিনে বিলীন হয়ে গিয়েছে বহু ঘর বাড়ি ও ফসলি জমি, মসজিদ, স্কুল, মাদ্রাসা সহ বহু স্থাপনা।


গত ১৮ আগষ্ট রাতে নিমিষেই নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়েছে ঐতিহাসিক খাজা মইন উদ্দিন চিশতী গাজি কালুর ৪ তালা বৈঠক খানা সত আরো কয়েক টি ভবন। সর্বনাশা পদ্মা বিলীন করেছে নড়িয়া – মুলফৎগঞ্জ যাতায়াতের প্রধান সড়কের বাঁশতলা অংশের প্রায় ১ কিলোমিটার পাকা রাস্তা যার কারনে নড়িয়ার সাথে যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে পড়েছে কয়েক হাজার পরিবার। কিছুদিন আগে পদ্মার আকস্মিক ভাঙ্গনে সাধুরবাজারে একসাথে প্রায় ১৫ শতাংশ জায়গা বেশ কিছু দোকান সহ বিলীন হয়ে গিয়েছে। এতে নিহত হয়েছে ১ জন, নিখোঁজ রয়েছে অন্তত ৯ জন এবং আহত হয়েছে প্রায় ২৫ জন।


আগ্রাসী পদ্মার তীব্র ভাঙ্গনে হুমকির মুখে রয়েছে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি, ঐতিহাসিক নড়িয়া বাজার, মুলফৎগজ্ঞ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, স্কুল-কলেজ এবং মসজিদ-মাদরাসা সহ কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ। গত কয়েক দিন পদ্মা নদীর ডান তীরে নড়িয়ার বাঁশতলা এলাকায় ব্যাপক নদী ভাঙ্গন দেখা দেয়। এতে পদ্মাপাড়ের লোকজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। সরকারের কাছে দ্রুত সময়ের মধ্যে ভাঙন প্রতিরোধের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

স্থানীয় লোকজন বলেন নড়িয়া উপজেলা বহু বছর ধরে পদ্মা নদীর ভাঙনের ফলে নড়িয়া উপজেলা শরীয়তপুর জেলার মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে। গত দুই বছরে প্রায় কয়েক হাজার মানুষ গৃহহারা হয়েছে। এবছর যেভাবে ভাঙন শুরু হয়েছে তাতে আমাদের বাচার কোন আশা নেই। হাজার হাজার মানুষ আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। সরকারের কাছে আমার ভাঙন ঠেকানোর জন্য জোর দাবী জানাচ্ছি।

প্রসঙ্গত গত দুই বছরে পদ্মার অব্যাহত ভাঙনে শরীয়তপুরের নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলার প্রায় ৭ হাজার পরিবার গৃহহীন হয়েছে। এ ক্ষতি এড়াতে জাজিরা-নড়িয়া পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা প্রকল্প নামে একটি প্রকল্প ২ জানুয়ারি অনুমোদন দেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ১ হাজার ৯৭ কোটি টাকার এ প্রকল্পের আওতায় ৯ কিলোমিটার এলাকায় বাঁধ ও চর ড্রেজিং করা হবে। বর্তমানের প্রকল্পটি আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আটকে আছে। তবে সমসাময়িক ভাঙ্গন রোধে বালু ভর্তি জি ও ব্যাগ ফেলবার জন্য সরকার ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ করলেও। তা কোন কাজে লাগেনি। অভিযোগ রয়েছে বস্তায় বালুর সাথে মাটি দেয়াতে এবং ওজনে কম বালু ভরাতে। পানিতে জিও ব্যাগ ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। সরকারের ৩ কোটি টাকা বেহুদা পানিতে ফেলেছে।


শরীয়তপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. তারেক হাসান বলেন, পদ্মা নদীতে যে ভাঙন শুরু হয়েছে তা সাময়িক ভাবে ঠেকানোর জন্য আমার পদ্মার বালু ভর্তি জি ও ব্যাগ ফেলছি এবং স্থায়ী বাধঁ নির্মানের জন্য একনেক যে প্রকল্পটি পাস করেছে তা মন্ত্রনালয় থেকে ঠিকাদার নিয়োগ হলেই আমরা কাজ শুরু করবো।

20.08.2018 | 08:28 PM | সর্বমোট ৩৬২ বার পঠিত

শরীয়তপুর পদ্মার ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে নড়িয়া উপজেলা" data-width="100%" data-numposts="5" data-colorscheme="light">

জাতীয়

দু’দেশের সম্পর্ক এখন উচ্চতর পর্যায়ে

'স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী দু'দেশের সম্পর্ক একটি শক্ত ভিতের ওপর স্থান করেছিলেন। আর...... বিস্তারিত

21.09.2018 | 09:51 PM


রাজধানী

চট্টগ্রাম

ফেইসবুকে নিউজ ৭১ অনলাইন

ধর্ম

শরীর রক্তাক্ত করে শোক পালন হারাম

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা হযরত আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ীর ফতোয়া অনুযায়ী মহররম ও আশুরার শোক পালনের ক্ষেত্রে শরীর রক্তাক্ত করা হারাম। এমনকি...... বিস্তারিত

18.09.2018 | 01:47 PM

বিনোদন

ওবায়দুল কাদেরের গল্পের নায়িকা কে?

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের লেখা উপন্যাস নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হচ্ছে। উপন্যাসটির নাম ‘গাঙচিল’।উপন্যাসের...... বিস্তারিত

19.09.2018 | 04:36 PM

সর্বশেষ সংবাদ

সব পোস্ট

English News

সম্পাদকীয়

বিশেষ প্রতিবেদন

মানুষ মানুষের জন্য

আমরা শোকাহত

অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

অন্যরকম

ভিডিওতে ৭১এর মুক্তিযোদ্ধের ইতিহাস

ভিডিও সংবাদ