অপরিবর্তিত একাদশ নিয়েই মাঠে নামছে ব্রাজিল

প্রকাশিত: ৮:৪৪ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ৯, ২০২২

এবারের বিশ্বকাপে চিরচেনা ব্রাজিলকে পাওয়া গেছে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে। শেষ ষোলোর সে লড়াইয়ে ৪-১ গোলের জয় পেয়েছিল সেলেসাওরা। কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াইয়ে এবার তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া। গত আসরের রানার্সআপদের বিপক্ষে আগের একাদশের ওপরই আস্থা রাখছেন কোচ তিতে।

এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় ক্রোয়েশিয়াকে মোকাবিলান জন্য মাঠে নামবে নেইমাররা।

লুকা মদ্রিচদের হারাতে দক্ষিণ কোরিয়াকে উড়িয়ে দেয়া একাদশের ওপরেই ভরসা রাখছেন তিতে। যেখানে গোলবারে থাকা অ্যালসন বেকারের সঙ্গী হিসেবে সেন্টার ব্যাকের দায়িত্বে থাকবেন থিয়াগো সিলভা ও মার্কুইনস।

রাইট ব্যাকের দায়িত্বে থাকবেন এদের মিলিতাও। অ্যালেক্স সান্দ্রো হিপ ইনজুরি থেকে সেরে উঠলেও শুরুর একাদশে তার থাকার সম্ভাবনা নেই। তাই লেফট ব্যাকের দায়িত্ব থাকছে দানিলোর কাঁধেই।

ক্যাসেমিরো থাকছেন তার জায়গাতেই। মাঝমাঠে তার সঙ্গী হিসেবে থাকবেন লুকাস পাকেতা। ফরোয়ার্ডে নেইমারের দুই পাশে রাফিনিয়া ও ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। স্ট্রাইকার পজিশনে থাকছেন রিচার্লিসন।

কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের যত ভয় ইউরোপীয় দলগুলোকে নিয়ে। ২০০৬ সালে শেষ আটের লড়াইয়ে তারা ফ্রান্সের বিপক্ষে হেরে আসর থেকে ছিটকে গিয়েছিল। এরপর ২০১০ সালের কোয়ার্টার ফাইনালে তাদের বিদায় নিতে হয় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে হেরে। ২০১৪ সালে লাতিন আমেরিকার দেশ কলম্বিয়াকে পেয়ে কোয়ার্টারের বাধা টপকে গিয়েছিল ব্রাজিল।

কিন্তু সেমিতে গিয়ে তাদের নাস্তানাবুদ হয়ে হয় জার্মানির বিপক্ষে। এরপর গত রাশিয়া বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে আবার ইউরোপের দল বেলজিয়ামের বিপক্ষে হেরে বিদায় নিয়েছিল সেলেসাওরা। তবে নেইমারদের স্বস্তি দিচ্ছে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে তাদের অতীত পরিসংখ্যান।

ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপে কখনোই হারেনি ব্রাজিল। এ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে দুই ম্যাচে তিন গোল আছে নেইমারের। আর এক গোল করলে তিনি স্পর্শ করবেন পেলের ব্রাজিল জার্সিতে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড।

ব্রাজিল একাদশ

অ্যালিসন বেকার, এদের মিলিতাও, মারকুইনস, থিয়াগো সিলভা, দানিলো, ক্যাসেমিরো, লুকাস পাকেতা, নেইমার, রাফিনিয়া, রিচার্লিসন ও ভিনিসিয়াস জুনিয়র।

ক্রোয়েশিয়া একাদশ

লিভাকোভিচ, জুরানোভিচ, লোভরেন, জিভার্দিওল, সোসা, লুকা মদ্রিচ, ব্রোনোজোভিচ, কোভাচিচ, পাসালিচ, ক্রামারিচ ও পেরিসিচ।