রামগড়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

বাহার উদ্দিন বাহার উদ্দিন

রামগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ৮, ২০২২

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে রামগড়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। ১৯৭১ সালের ৮ই ডিসেম্বর রামগড় পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয়।দিবসটি পালন উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড দিনব্যাপী নানান কর্মসূচির আয়োজন করে।
মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড, স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রী, জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা ও সর্বস্তরের জনগণের সমন্বয়ে সকাল দশটায় উপজেলা কমপ্লেক্সের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে রামগড় শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সমূহ প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রা শেষে রামগড় বিজয় ভাস্কর্যের পাদদেশে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে প্রবীণ মুক্তিযোদ্ধাদের কাছ থেকে নতুন প্রজন্মের ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ছালে আহম্মদ,ভূপেন ত্রিপুরা, প্রমোদ বিহারী দেবনাথ, ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মফিজুর রহমান। পরে দিবসটি উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
রামগড় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মোঃ ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাতের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান বিশ্ব প্রদীপ কুমার কারবারি।
সভায় মহান মুক্তিযুদ্ধে রামগড়ের অবদান আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন, রামগড় উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মফিজুর রহমান,রামগড় পৌরসভার মেয়র মোঃ রফিকুল আলম কামাল,রামগড় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পাতাছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কাজি নুরুল আলম আলমগীর, রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের নেতা রামগড় পৌরসভার কাউন্সিলর মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন প্রমুখ।
বক্তারা বলেন আজ ৮ই ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে রামগড় হানাদার মুক্ত হয়। বক্তারা আরও বলেন দীর্ঘ ৯ মাসের সংগ্রামী মুক্তি যুদ্ধের লড়াইয়ের পর পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরদের পতনের পর ৮-ই ডিসেম্বর পড়ন্ত বিকেলে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য প্রয়াত সুলতান আহম্মেদ মুক্তিকামী বাঙালিদের নিয়ে রামগড় প্রধান ডাকঘরের শীর্ষে লাল-সবুজের পতাকা উত্তোলণ করে রামগড়কে হানাদার মুক্ত ঘোষণা করা হয়।
রামগড়ের স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ১৯৭১ সালে যুদ্ধকালীন সময়ে গেরিলা কৌশলে যুদ্ধ পরিচালনার জন্য গোটা বাংলাদেশকে ১১ টি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছিল তার মধ্যে ১নং সেক্টরের আওতাধীন বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের অবস্থিত পার্বত্য অঞ্চলে রামগড় ছিল অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর ।এটিই খাগড়াছড়ি জেলার প্রথম মুক্তাঞ্চল।