সাভারে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৫:৪৪ অপরাহ্ণ , আগস্ট ১২, ২০২২

সাভারে সংবাদ প্রকাশের জের ধরে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সাভারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন সাংবাদিকরা। শুক্রবার দুপুরে সাভার উপজেলা পরিষদের সামনে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে অংশ নেন স্থানীয় সংবাদ কর্মীরা।

এ সময় বক্তারা বলেন, আশুলিয়ায় বাড়িতে ঢুকে হামলা মারধর ও লুটপাটের ঘটনায় এক ইউপি সদস্য গ্রেপ্তারের সংবাদ প্রকাশের পর উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে কয়েকজন সাংবাদিককে উদ্দেশ্য করে ভয়ংকর অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে তার অনুসারীরা। সাংবাদিকদের ছবি বিকৃত করে সামাজিক যোগাযোগ মত ফেসবুকে ছড়ানো হচ্ছে। যা তথ্যপ্রযুক্তি আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ভয়ংকর অপরাধের শামিল। তাই এ ধরনের কর্মকান্ডে জডড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে তাদের অপকর্মের বিষয়টি ব্যাপক চাঞ্চলের সৃষ্টি হওযয়ায় এখন সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে সন্ত্রাসীরা। বিষয়টি সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের মত প্রকাশের ক্ষেত্রে বড় অন্তরায়।

মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ ২৪ টিভি’র প্রতিবেদক নাজমুল হুদা, ভোরের পাতা ও গ্লোবাল টেলিভিশনের প্রতিবেদক তোফায়েল হোসেন তোফাসানি, দৈনিক মানবকন্ঠের সাদ্দাম হোসেন, এশিয়ান টিভির ওমর ফারুক, আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকার প্রতিনিধি জাহিন সিংহ, ডেইলি সানের প্রতিবেদক মেহেদী হাসান মানিক ও ভুক্তভোগী সাংবাদিক সোহেল রানা। অন্যান্যের মধ্যে মোহনা টিভির প্রতিবেদক জিয়া উদ্দিন, যায়যায়দিনের প্রতিবেদক মোঃ আরজু মীর, সময়ের আলোর দেওয়ান মো. ইমন সহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন থেকে সারা দেশের নির্যাতিত সাংবাদিকদের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করে সাংবাদিকদের পেশাদারিত্বের নিরাপত্তা ও সংবাদ মাধ্যম ও সংবাদকর্মীদের যেকোনো দাবির সাথে সরব থাকার অঙ্গিকার করেন বক্তারা।

উল্লেখ্য, গত ৯ আগস্ট মঙ্গলবার রাতে আশুলিয়ার নিরিবিলি এলাকায় শতাধিক লোক নিয়ে একটি বাড়িতে হামলা চালান পাথালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিউল আলম সোহাগ। এ ঘটনায় হামলা ভাঙচুর, লুটপাট ও নারীদের শ্লীলতাহানির অভিযোগে ভুক্তভোগীর দায়ের করা মামলায় ইউপি সদস্যসহ ৮ জনকে গ্রেপ্তার করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।