ভোটের মাঠ নিয়ন্ত্রণে সব দলের থাকা দরকার

প্রকাশিত: ৫:১৯ অপরাহ্ণ , জুলাই ২৭, ২০২২

নির্বাচনের মাঠ নিয়ন্ত্রণ এবং ভারসাম্য সৃষ্টি করতে সব দলের উপস্থিতি প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল।

নতজানু হয়ে নয়, মেরুদণ্ড সোজা রেখে নির্বাচন কমিশন কাজ করবে বলেও জানান তিনি।

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিক সংলাপের নবম দিন বুধবার নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে প্রথম ভাগে জাকের পার্টির সঙ্গে আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন।

সংলাপে নির্বাচনে অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করা, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্লক চেইন টেকনোলজির মাধ্যমে ঘরে বসে ই-ভোটিং ব্যবস্থা চালু করাসহ চারটি সুপারিশ তুলে ধরে জাকের পার্টি।

সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, “গণতন্ত্রকে অস্বীকার করার উপায় নেই, গণতন্ত্রের কারণেই দেশ স্বাধীন হয়েছে। নির্বাচনের মাঠকে নিয়ন্ত্রণ করতে সব পার্টিরই থাকা দরকার, এতে ভারসাম্য সৃষ্টি হয়।”

আগামী জাতীয় নির্বাচন ইভিএমে হবে এমন সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি বলে জানান সিইসি। তবে ইভিএম যাতে হ্যাকড না হয়, সেজন্য কাজ চলছে বলে জানান তিনি।

দিনের দ্বিতীয় ভাগে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর নেতৃত্বে ইসির সাথে সংলাপে বসে কৃষক শ্রমীক জনতা লীগ।

শুরুতেই রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বড় দল, ছোট দলের জন্য সংলাপে সময় নির্ধারণে বিভাজন তৈরি করে ইসি নিরপেক্ষতা হারিয়েছে বলে অভিযোগ তোলেন কাদের সিদ্দিকী; প্রশ্ন তোলেন ইভিএমের ত্রুটি নিয়েও।

তিনি বলেন, তফসিল ঘোষণার পর সর্বময় ক্ষমতা ইসির, ক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারা না পারা ইসির হাতে।

সিইসি বলেন, ইসি তার ক্ষমতা সম্পর্কে অবহিত, মেরুদণ্ড বাঁকা করে না, শক্ত রেখেই কাজ করবে ইসি।

এদিন সংলাপে অংশ নেয়নি গরুর গাড়ি প্রতীকের বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি এবং দলের প্রতিষ্ঠাবাষির্কী থাকায় সময় আসেনি বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি।