চবি ছাত্রীর যৌন নিপীড়নে শনাক্ত ২

প্রকাশিত: ৩:৩৩ অপরাহ্ণ , জুলাই ২২, ২০২২

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ছাত্রীকে যৌন নিপীড়ন ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের ঘটনায় দুজনকে শনাক্ত করেছে পুলিশ। তবে তাদের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি।

শুক্রবার (২২ জুলাই) সকালে সময় সংবাদকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন চবির প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় পাঁচজন জড়িত। সিসিটিভির ফুটেজে, কয়েক যুবককে মোটরসাইকেলে করে চলে যেতে দেখা যায়। তাদের পেছনের অংশ দেখা যাচ্ছিল। চেহারা স্পষ্ট নয়। তারা কোন রাস্তা দিয়ে এসেছে সে বিষয়ে এখনো সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। ভিকটিমের সঙ্গে কথা বলে তদন্ত কমিটি পুরো বিষয়টি দেখছে। ঘটনার সঙ্গে কয়েকজন জড়িত থাকলেও বিশ্ববিদ্যালেয় শিক্ষার্থী হিসেবে দুজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদের ধরতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালাচ্ছে বলেও জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর।

গত রোববার (১৭ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেন এলাকায় এক শিক্ষার্থীকে যৌন নিপীড়ন করে পাঁচ যুবক। ওই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে গাছে বেঁধে বিবস্ত্র করে মুঠোফোনে ভিডিও ধারণেরও অভিযোগ পাওয়া যায়। এ সময় তার সঙ্গে থাকা এক বন্ধু প্রতিবাদ করলে তাকেও মারধর করা হয়। এর পরদিন প্রক্টরের কার্যালয়ে মেয়েটি অভিযোগ জানাতে গেলে চবি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বাধা দেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

এ ঘটনার পর দোষীদের গ্রেফতার না করে উল্টো ছাত্রীদের ১০টার মধ্যে হলে প্রবেশের বাধ্যবাধকতা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ ঘটনায় ফুঁসে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার ও সান্ধ্য আইন বাতিলের দাবি জানানো হয়।

এ ঘটনায় একের পর এক আন্দোলন চলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। বুধবার রাতে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে বিক্ষোভ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা।

এরপর বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ক্লাস বর্জন করে আন্দোলন করেন রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। দুপুর ১২টা থেকে শহীদ মিনারের সামনে আন্দোলন করেন প্রগতিশীল ছাত্র জোট ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শহীদ মিনার ও প্রক্টর অফিসের সামনে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ করেন শত শত শিক্ষার্থী।