নড়াইলে সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে বশেমুরবিপ্রবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ১১:৩০ অপরাহ্ণ , জুলাই ১৯, ২০২২

নড়াইলের দিঘালিয়া ও লোহাগড়ায় হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবারি লুটপাট, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ এবং মন্দিরের শিববিগ্রহ অবমাননার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা।

সনাতন সংঘের উদ্যোগে আজ (বুধবার) দুপুর ২ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মন্দির সংলগ্ন ফটকের সামনে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে উক্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা এধরণের সাম্প্রদায়িক হামলার তীব্র নিন্দা জানান এবং হামলাকারীদের দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান।

শিক্ষার্থী মানস তালুকদার বলেন, ‘ ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে আন্দোলন থেকে শুরু করে ৫২ এর ভাষা আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, ৭০ এর নির্বাচন, ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ, স্বৈরাচার পতন আন্দোলনসহ প্রতিটি ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের সংখ্যালঘুরা অংশগ্রহণ করেছে এবং গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। ৭১ এ বাংলাদেশ স্বাধীনের পরে যে সংবিধান তৈরি করা হয়েছিলো সেখানে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের কথা বলা হয়েছে কিন্তু ৭৫ এ পাকিস্তানি মতাদর্শে বিশ্বাসীরা যেমন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলো তেমনি একই মতাদর্শে বিশ্বাসীরা দেশকে পাকিস্তানি রূপ দিতে বর্তমানে সংখ্যালঘুদের ওপর এসব হামলা করছে।’

এই শিক্ষার্থী আরও বলেন, ‘সংখ্যলঘুদের ওপর বারবার এমন হামলার ঘটনা ঘটলেও এসব ঘটনার বিচার হয়নি। আমরা চাই সকল সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার হোক, সংবিধানের অসাম্প্রদায়িক নীতি বাস্তবায়ন হোক, সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন করা হোক এবং নড়াইলের ঘটনার বিচারবিভাগীয় তদন্ত করে দোষীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনা হোক।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি মুসলিম ধর্ম অবমাননা করে এক হিন্দু যুবক ফেসবুক পোস্ট দিয়েছে এমন অভিযোগকে কেন্দ্র করে নড়াইলের হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে হামলা, অগ্নিসংযোগ ও দোকান লুট-পাটের ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় অর্ধ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।