আন্তঃজেলা গাড়ি চোর চক্রের দুই সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশিত: ১১:০৩ অপরাহ্ণ , জুলাই ২, ২০২২

আন্তঃজেলা গাড়ি চোর চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঢাকা জেলা।

শনিবার (০২ জুলাই) পিবিআই ঢাকা জেলা অফিস থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়৷

এরআগে, শুক্রবার (০১ জুলাই) মোহাম্মদপুর তিন রাস্তা এবং চাঁদ উদ্যান থেকে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন-মাদারীপুর জেলার শিলারচর গ্রামের মৃত জব্বার বেপারীর ছেলে মামুনুর রশিদ (৩৬) এবং লক্ষ্মীপুর জেলার থানার মৃত ফজল আহম্মেদ এর ছেলে মোজাম্মেল হোসেন (৪৫)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৪ জুন গভীর রাতে বাদীর কেরানীগঞ্জ থানাধীন পুরাতন ভাড়ালিয়া কামাল মিয়ার ভাড়া বাসা থেকে একটি নিশান প্রাইভেট কার ঢাকা মেট্রো খ ১২-৯০১৩ অজ্ঞাতনামা চোরের দল চুরি করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় গাড়ির মালিক জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (মামলা নং- ২৬, তারিখ- ১৩/০৬/২০২২ হং)।

জানা গেছে, মামলাটি প্রথমে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মুক্তি মাহমুদ তদন্ত করেন।

তিনি আসামী শনাক্ত এবং গাড়ির কোন সন্ধান না করতে পারায় পিবিআই হেডকোয়ার্টার্স এর নির্দেশে পিবিআই ঢাকা জেলার এসআই আনোয়ার হোসেন মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেন।

মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তিনি অত্র মামলার ঘটনার সাথে জড়িত দুই আসামী সহ চুরি যাওয়া গাড়ি উদ্ধার করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আনোয়ার হোসেন এবং টীম ইনচার্জ (এসআই) সালেহ ইমরান জানান, মামলার তদন্তভার পেয়ে আমরা একটি সিসিটিভি ফুটেজ পাই।

উক্ত ফুটেজ এর সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার এবং গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নিশ্চিত হয়ে আসামী মামুন এবং মোজাম্মেল হোসেনকে ০১ জুলাই মোহাম্মদপুর তিন রাস্তা এবং চাদ উদ্যান এলাকা থেকে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করি।

পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ০২ জুলাই ভোর রাতে কিশোরগঞ্জ সদর থানাধীন মারিয়া ইপিজেড এলাকা থেকে গাড়িটি উদ্ধার করা হয়। আসামীরা বিভিন্ন গাড়ি থেকে ব্যাটারী এবং দোকান এর তালা কেটে মাল পত্র চুরির কথা স্বীকার করেছে সেই সাথে এই চক্রের আরো সদস্যের নাম প্রকাশ করেছে।

পিবিআই ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খোরশেদ আলম (পিপিএম সেবা) জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে একাধিক চুরির মামলা আছে। এই ঘটনায় আরও কেউ জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।