দ্রুতগতির মোবাইল ব্যবহারের নতুন অভিজ্ঞতা নিয়ে এলো ইনফিনিক্স ‘নোট ১২ জি৯৬’

প্রকাশিত: ২:২৪ অপরাহ্ণ , জুন ২৮, ২০২২

সর্বাধুনিক প্রযুক্তির এই ফোনে রয়েছে হেলিও জি৯৬ প্রসেসর সহ অভাবনীয় সব ফিচার; আর তাই সাধারণ ব্যবহারকারী ও গেমিংভক্তদের কাছে এটি পরিণত হয়েছে কাঙ্ক্ষিত ডিভাইসে।

প্রিমিয়াম মোবাইল নির্মাতা কোম্পানি ইনফিনিক্স সম্প্রতি ‘স্পিড মাস্টার’ তকমায় বহুল প্রতীক্ষিত নোট সিরিজের সর্বশেষ স্মার্টফোন ‘নোট ১২’ বাজারে এনেছে ও আলোচনার ঝড় তুলেছে। ডিভাইসটির দ্রুতগতির পারফরম্যান্স, দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি এবং মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লের এই অসাধারণ সমন্বয় পাওয়া যাচ্ছে সাশ্রয়ী দামে; এজন্য ‘নোট ১২’কে অবিশ্বাস্য বললেও যেন কম বলা হয়! টেক-উৎসাহী, রিভিউয়ার এবং ইউটিউবাররা ইতোমধ্যে স্মার্টফোনটির শক্তিশালী চিপসেট, অবিশ্বাস্য সক্ষমতার ব্যাটারি, বর্ধিত র‌্যাম টেকনোলজি, আকর্ষণীয় ও মানসম্পন্ন ডিসপ্লের প্রশংসায় মেতেছেন। এছাড়া তারা মোবাইলটির সর্বোপরি পারফরম্যান্স ও গেমিং সক্ষমতা নিয়েও সন্তুষ্টি জানিয়েছেন!

শক্তিশালী মিডিয়াটেক জি৯৬ চিপসেট এর কল্যাণে স্মার্টফোনে সব কাজ করা যায় দ্রুততার সাথে ও নির্বিঘ্নে
এই ডিভাইসে অত্যাধুনিক মিডিয়াটেক ‘হেলিও জি৯৬’ প্রসেসর ব্যবহার করায় ‘নোট ১২’ মোবাইলে সহজেই প্রয়োজনীয় গেম খেলা যায় ও জটিল সব মাল্টি-টাস্কিং নির্বিঘ্নে করা সম্ভব হয়। এবারই প্রথমবারের মতো ‘হেলিও জি৯৬’ সহযোগে এমন উন্নত একটি স্মার্টফোন এ ধরনের সাশ্রয়ী মূল্যে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া ফোনের চিপসেট এর দুটি শক্তিশালী আর্ম কর্টেক্স-এ৭৬ এবং ৬টি আর্ম কর্টেক্স-এ৫৭ জিপিইউ এর মাধ্যমে যুগান্তকারী পারফরম্যান্স দিতে সক্ষম। পাশাপাশি ডার-লিংক ২.০ এর ব্যবহার তাপমাত্রা নমনীয় রেখেই ছবির গুণগত মান এবং স্পর্শের সংবেদনশীলতা নিশ্চিত করে। এই মূল্যের অন্যান্য স্মার্টফোনে যেখানে এসডিএম ৬৮০ অথবা এসডিএম ৭২০জি প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে, সেখানে জি৯৬ প্রসেসর অন্তুতু পারফরম্যান্স স্কোরে সবদিকেই এগিয়ে। ১০ স্তরের গ্রাফিনি কুলিং সিস্টেমের নোট ‘১২ জি৯৬’ ‘কোর টেম্পারেচারে’ প্রশমন ঘটাতে পারে সর্বোচ্চ ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত। এর ফলে গেমিংভক্তরা ভারী ও দ্রুতগতির গেম বিঘ্ন ছাড়াই খেলতে পারেন।

স্পষ্ট ও ঝকঝকে ছবি পেতে মনোমুগ্ধকর অ্যামোলেড ডিসপ্লে
‘নোট ১২’ স্মার্টফোনে রয়েছে ৬.৭” ইঞ্চির এফএইচডি+ ট্রু কালার অ্যামোলেড ডিসপ্লে; এই দামে অন্যান্য ডিভাইসে পাওয়া এলসিডি স্ক্রিনের চেয়ে এই অ্যামোলেড ডিসপ্লেতে আছে নানাবিধ সুবিধা। এলসিডি ডিসপ্লের তুলনায় অ্যামোলেড ডিসপ্লেতে কম শক্তির প্রয়োজন হয়; এবং ছবি পাওয়া যায় আরো বেশি ঝকঝকে ও মোশন রেসপন্স রেন্ডারও হয় দ্রুত। ডিভাইসের ১৮০ হার্টজ টাচ স্যাম্পলিং রেট এর কারণে কোনো ত্রুটি বা ‘ফ্রেম ড্রপ’ পরিলক্ষিত হয় না। এছাড়া স্মার্টফোনে আরো আছে ১ হাজার নিটস্ এর পিক ব্রাইটনেস সম্বলিত শতভাগ ডিসিআই-পি৩ ‘কালার গ্যামট’, ফলে পছন্দসই দৃশ্য উপভোগ করতে পারেন গ্রাহকরা।
সর্বোচ্চ ১৩ জিবি (৮জিবি + ৫জিবি) পর্যন্ত বর্ধিত র‌্যাম সুবিধা
শক্তিশালী মিডিয়াটেক জি৯৬ চিপসেট ছাড়াও ‘স্পিড মাস্টার’ নোট ১২’তে রয়েছে মাল্টিটাস্কিং এর সুবিধার জন্য ৮ জিবি র‌্যামের বৃহৎ স্টোরেজ সুবিধা। মেমোরি ফিউশন টেকনোলজি ব্যবহার করে এই র‌্যাম বর্ধিত করা যায়। মেমোরি ফিউশন টেকনোলজি অ্যাপ দ্রুত চালু করতে সাহায্য করে ও বিভিন্ন পরিস্থিতিতে প্রসেসিং স্পিড সামলে নেওয়ায় কোনো বিঘ্ন ছাড়াই ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যাপ সংখ্যা ৯ থেকে বাড়িয়ে সহজেই ২০টি করা সম্ভব হয় এবং ‘ল্যাগ’ বা বিলম্বিত সময়ের পরিমাণ কমে আসে ৬১ শতাংশ। এছাড়া মেমোরি ফিউশন প্রযুক্তি ব্যাটারির অবনমনও কমিয়ে আনতে সাহায্য করে। এই ফিচারে ব্যবহারকারীদের নিয়ন্ত্রণ থাকায় তারা ইচ্ছেমতো ২জিবি, ৩জিবি অথবা ৫জিবি র‌্যাম বাড়িয়ে নিতে পারেন। স্মার্টফোনের ১২৮জিবি রমও বাড়ানো যায় ২ টেরাবাইট পর্যন্ত। নোট ১২ জি৯৬ এ আরো রয়েছে ইউএফএস২.২; রাইট বুস্টার থাকায় এটি দ্রুত ডেটা ধারণ করতে পারে এবং ইউএফএস২.১ এর চেয়ে দ্রুত এপ্লিকেশন লোডে সক্ষম হয়।
৩৩ওয়াট ফ্ল্যাশ চার্জিং সুবিধা-সম্পন্ন ৫০০০এমএএইচ ব্যাটারি
অসাধারণ এসব ফিচার কোনটাই কাজে আসত না, যদি ডিভাইসটিতে একটি শক্তিশালী সক্ষমতার ব্যাটারি না থাকত। নোট ১২’তে ব্যবহারকারীদের জন্য রয়েছে ৩৩ ওয়াট ফ্ল্যাশ চার্জিং সুবিধা সম্পন্ন ৫০০০এমএএইচ ব্যাটারি। তাই স্মার্টফোনটি দীর্ঘসময় ব্যবহার নিয়ে মোটেই দুশ্চিন্তা করতে হবে না। একবার চার্জেই নির্ভাবনায় সারাদিন মেতে থাকা যাবে ডিভাইসটি নিয়ে। তাছাড়া ব্যাটারির রয়েছে সর্বোচ্চ ৮০০ চার্জ সাইকেল কাউন্ট, তাই বারাবার ব্যবহারেও মোবাইলের ব্যাটারি লাইফে অবনমন ঘটে না।
সিনেম্যাটিক এইচডি লেন্স সহ ৫০ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-নাইট ক্যামেরা
চমৎকার এই স্মার্টফোনে আরো আছে ৫০ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-নাইট ক্যামেরা, যেটি মৃদু আলোতেও নিখুঁতভাবে ছবি ক্যামেরাবন্দি করতে পারে। রাতে ছবি তোলার ক্ষেত্রে সহায়তা করে ডিভাইসের কোয়াড রিয়ার ফ্ল্যাশলাইট। এছাড়া, ডুয়েল ফ্রন্ট ক্যামেরা দিয়ে প্রতি ক্লিকেই তোলা যায় অসাধারণ সব ছবি। এছাড়া গ্রাহকরা এই মোবাইল ব্যবহার করে স্বাচ্ছন্দ্যে ১০৮০পিক্সেল ও ৩০ এফপিএস এর কোয়ালিটি ভিডিও মুঠোবন্দি করতে পারবেন।

গড়ন ও ডিজাইন
হালকা গড়ন ও আল্ট্রা-স্লিক ডিজাইনের ‘স্পিড মাস্টার’ নোট ১২ দেখতেও বেশ নান্দনিক। স্মার্টফোনটি পাওয়া যাচ্ছে, ‘ফোর্স ব্ল্যাক’, ‘স্নোফল হোয়াইট’, ও ‘স্যাফায়ার ব্লু’ এই তিনটি বিশেষ রঙে। এছাড়া, মোবাইলের লিনিয়ার মোটর ট্যাকটাইল সিস্টেম ডিভাইসের ব্যবহারের প্যাটার্ন উপলব্ধি করে ফোনের ভাইব্রেশন এর সঙ্গে তা খাপ-খাইয়ে নেয়।
অন্যান্য ফিচার সমূহ
এই স্মার্টফোনটি চালিত এক্সওএস ১০.৬ অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা, যেটি গ্রাহকদের স্মার্টফোন ব্যবহারের বাড়তি অভিজ্ঞতা দিয়ে থাকে। এই ফোনের ডিটিএস টেকনোলজি সহ সিনেম্যাটিক ডুয়েল স্পিকারস ইনফিনিক্সভক্তদের নিখুঁত সিনেম্যাটিক সাউন্ড উপভোগ করতে সাহায্য করবে। এছাড়া, মনস্টার গেমিং কিট ও ডার-লিংক আল্টিমেট গেম বুস্টারও ডিভাইসের গেমিং অভিজ্ঞতা নিয়ে যাবে ভিন্নমাত্রায়।
স্মার্টফোনটি গ্রাহকদের কেনা উচিত?
ইনফিনিক্স নোট ১২ নিঃসন্দেহে গেমিংভক্তদের পাশাপাশি সাধারণ ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন চাহিদাও পূরণে সক্ষম; আর তাই সাশ্রয়ী মূল্যের আকর্ষণীয় এই ফোনটি গ্রাহকদের কাঙ্ক্ষিত ডিভাইসে পরিণত হয়েছে। এই দামের মধ্যে এত অসাধারণ ফিচারের অন্য একটি ফোন বাজারে পাওয়া মোবাইল ব্যবহারকারীদের জন্য সহজ হবে না। গ্রাহকরা ইনফিনিক্স নোট ১২ জি৯৬ পেতে পারেন ১৯ হাজার ৯৯৯ টাকায় ও জি৮৮ ভার্সনটি পাওয়া যাচ্ছে ১৮ হাজার ৪৯৯ টাকায়।